নয়াদিল্লি: সংসদ সদস্য এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা দেদার সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। তবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) অনেক ক্ষেত্রেই ব্যতিক্রম। একটি আরটিআই (RTI)-এর জবাব অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রীর খাওয়া দাওয়ার জন্য সরকারি ভাঁড়ার থেকে একটি টাকাও খরচ হয় না। তিনি নিজেই তাঁর খাওয়ার খরচ বহন করেন।

প্রধানমন্ত্রীর খাওয়া দাওয়ার খরচ জানতে একটি আরটিআই দায়ের হয়েছিল। জবাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (PMO) সচিব বিনোদবিহারী সিং জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর খাবারের জন্য সরকারি বাজেট থেকে এক টাকাও খরচ হয় না।

এর পাশাপাশি, প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনটি (PM Awas) কেন্দ্রীয় গণপূর্ত বিভাগের আওতাধীন। যেখানে যানবাহনের দায়িত্ব এসপিজি-র হাতে। আরটিআই-‌টিতে বেতন সংক্রান্ত তথ্যও চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু, এই প্রশ্নের উত্তরে, শুধুমাত্র নিয়ম উল্লেখ করে, নিয়ম অনুযায়ী ইনক্রিমেন্টের তথ্য দেওয়া হয়েছে।

২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে প্রথম বার জয়ী হওয়ার পর সংসদে প্রবেশ করেন মোদী। এর পর ২০১৫ সালের ২ মার্চ বাজেট অধিবেশন চলাকালীন সংসদ ভবনের দোতলায় ক্যান্টিনে পৌঁছে সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন তিনি।

সংসদের ক্যান্টিনের অনেক সংস্কারও হয়েছে শেষ কয়েক বছরে। তবে ২০২১ সালের ১৯ জানুয়ারি সংসদের ক্যান্টিনে দেওয়া ভরতুকি বাতিল করে দিয়েছিলেন লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা। তার আগে এই ভরতুকির জন্য ব্যয় হয়েছিল ১৭ কোটি টাকা।

প্রসঙ্গত, এটা অনেকেই জানেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী নিখাদ নিরামিষভোজী এবং সাধারণ গুজরাতি খাবার পছন্দ করেন। এগুলির মধ্যে খিচুড়িও তাঁর পছন্দের একটি পদ। ডাল এবং তরকারিও তাঁর অন্যতম পছন্দের। সবশেষে ফ্রুট স্যালাডও থাকে তাঁর পাতে।

আরও পড়তে পারেন: 

কলকাতাতেও এ বার মিলবে হোম স্টে, পর্যটন দফতর-পুরসভা তৈরি করল গাইডলাইন

বন্যায় বিধ্বস্ত পাকিস্তান, ফের ভারত থেকে খাদ্য সামগ্রী আমদানির ভাবনা

প্রয়াত শেষ সোভিয়েত নেতা মিখাইল গর্বাচেভ

হুব্বলি ঈদগাহ ময়দানে গণেশ চতুর্থী পালনে অনুমতি কর্নাটক হাইকোর্টের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন