নয়াদিল্লি: শুক্রবার রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার (RBI) গ্রাহক কেন্দ্রিক দু’টি পরিষেবা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। আরবিআই-এর এই দুই পরিষেবা শুধুমাত্র বিনিয়োগের জন্য একটি নতুন প্ল্যাটফর্ম এনে দিল না, পাশাপাশি অনলাইনে সাইবার জালিয়াতির শিকার হলে ন্যায়বিচারের সুবিধাও মিলবে এখানে।

এ দিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আরবিআই-এর এই গ্রাহক কেন্দ্রিক উদ্যোগগুলি চালু করেন প্রধানমন্ত্রী। একটি পরিষেবার নাম রিটেল ডিরেক্ট স্কিম এবং অন্যটির নাম ইন্টিগ্রেটেড ওমবডসম্যান স্কিম (Integrated Ombudsman Scheme)। মোদী বলেন, রিটেল ডিরেক্ট স্কিম (RDS)-এর আবির্ভাবের ফলে সাধারণ মানুষ এখন বিনিয়োগের একটি নতুন বিকল্প পাবেন। বিনিয়োগকারীদের জন্য পুঁজিবাজারকে ব্যবহার করা আরও বেশি সহজ ও নিরাপদ হয়ে উঠবে।

দুই পরিষেবা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী যা বললেন…

*এই দু’টি প্রকল্প দেশে বিনিয়োগের সুযোগকে প্রসারিত করবে এবং বিনিয়োগকারীদের পুঁজিবাজারে প্রবেশকে আরও সহজ এবং সুবিধাজনক করে তুলবে।

*রিজার্ভ ব্যাঙ্কের রিটেইল ডিরেক্ট প্রকল্প ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সরকারি বন্ড বাজারে স্বল্প বিনিয়োগে অংশগ্রহণ করতে সাহায্য করবে এবং তাঁদের আর্থিক নিরাপত্তাও দেবে।

*ইন্টিগ্রেটেড ওমবডসম্যান স্কিম গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষা করবে। এর মাধ্যমে যে কোনো বিনিয়োগকারী যেকোনো জায়গায় বসে একটি একক পোর্টালে অভিযোগ জানাতে পারবেন।

*এই পরিষেবা নাগরিকদের চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে বিনিয়োগকারীদের আস্থা আরও জোরদার করে তুলবে।

*এখন মধ্যবিত্ত, কর্মচারী, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, প্রবীণ নাগরিকরা সিকিউরিটিজে নিরাপদ বিনিয়োগের আরেকটি ভালো বিকল্প পাচ্ছেন।

*মাত্র সাত বছরে ভারত ডিজিটাল লেনদেনের ক্ষেত্রে ১৯গুণ এগিয়েছে। আজ, আমাদের ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থা ২৪ ঘণ্টা, ৭ দিন এবং ১২ মাস যে কোনো সময়, দেশের সর্বত্র চালু রয়েছে।

এ ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী বলেন, “কোভিডের মধ্যেই সরকার ছোটো কৃষকদের কিসান ক্রেডিট কার্ড (KCC) দেওয়ার জন্য একটি বিশেষ প্রচার শুরু করেছিল। এর ফলে আড়াই কোটিরও বেশি কৃষক কেসিসি কার্ড পেয়েছেন এবং প্রায় ২.৭৫ লক্ষ কোটি কৃষি ঋণও পেয়েছেন। ৬-৭ বছর আগে পর্যন্ত, ব্যাঙ্কিং, পেনশন, বিমা, সবকিছুই ভারতে একচেটিয়া হয়ে দাঁড়িয়ে ছিল। দেশের সাধারণ নাগরিক, গরিব পরিবার, কৃষক, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী-ব্যবসায়ী, নারী, দলিত-বঞ্চিত-অনগ্রসর, এই সব সুযোগ-সুবিধা থেকে অনেক দূরে রয়ে গিয়েছিলেন। আগে যাঁরা এই কাজের দায়িত্বে ছিলেন তাঁরা কখনোই গরিবের কল্যাণের কথা মাথায় রেখে এই দিকগুলোতে নজর দেননি। বরং নানা রকম বাহানা বানিয়ে বিষয়গুলিকে এড়িয়ে গিয়েছেন”।

আরও পড়তে পারেন:

হাওড়া পুরসভা থেকে বিচ্ছিন্ন হল বালি, বিধানসভায় পাশ প্রস্তাব

মেঘ ঢকালো তামিলনাড়ু উপকূলের নিম্নচাপ, আগামী ৩-৪ দিন দফায় দফায় হালকা বৃষ্টি দক্ষিণবঙ্গে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন