খবর অনলাইন ডেস্ক: নয়াদিল্লি: দেশ জুড়ে করোনার টিকাকরণ শুরুর দিন চূড়ান্ত করার লক্ষ্যে আগামী ১১ জানুয়ারি সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। দু’দফায় ভ্যাকসিনের দেশজোড়া মহড়ার পর প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে জানানো হয়, আগামী সোমবার বিকেল চারটের সময় ওই ভার্চুয়াল বৈঠক হবে।

এমনতি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. হর্ষ বর্ধন জানিয়ে দিয়েছেন, ভ্যাকসিন নিয়ে অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে আর বেশিদিন অপেক্ষা করতে হবে না। কয়েকদিনের মধ্যেই করোনার টিকাকরণ শুরু হতে চলেছে। খুব দ্রুত রাজ্যগুলিতে ভ্যাকসিন পৌঁছে যাবে। অনুমান, মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ওই বৈঠকেই টিকাকরণের দিনক্ষণ ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী।

গত ৩ জানুয়ারি সেরাম ইনস্টিটিউটের (Serum Institute) তৈরি কোভিশিল্ড (Covishield) এবং ভারত বায়োটেকের (Bharat Biotech) তৈরি কোভ্যাক্সিনের (Covaxin) সীমাবদ্ধ জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে ডিসিজিআই।

ছাড়পত্র পাওয়ার ১০ দিনের মধ্যেই করোনার টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু করতে স্বাস্থ্যমন্ত্রকও তৈরি বলে ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ। সেই হিসেবেই ১২ থেকে ১৪ জানুয়ারির মধ্যে করোনার টিকা দেওয়ার কাজ শুরু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর পরই জানা যায়, প্রথম ধাপে যে এক কোটি স্বাস্থ্যকর্মী ও দু’কোটি প্রথম সারির কোভিড-যোদ্ধাকে টিকা দেওয়া হবে, তাঁদের কোভিশিল্ড দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। প্রথম দফার টিকাকরণের জন্য ৪৮০ কোটি বরাদ্দও করা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে।

তবে শুরু প্রথম দফায় নয়, সমগ্র দেশবাসীর জন্যই বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার দাবি তুলেছে একাধিক রাজ্য। মহারাষ্ট্রের এক মন্ত্রী দাবি করেছেন, টিকার দাম কেন্দ্রের তরফেই মিটিয়ে দেওয়া হোক। স্বাভাবিক ভাবেই, টিকার মহড়ায় কী ধরনের সমস্যা দেখা দিয়েছে অথবা রাজ্যগুলির কী ধরনের চাহিদা রয়েছে, সে সব নিয়েও মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে কথা হতে পারে প্রধানমন্ত্রীর।

আরও পড়তে পারেন: কো-উইন: ভুয়ো করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন অ্যাপ নিয়ে সতর্ক করল কেন্দ্র

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন