BJP
বিজেপির জাতীয় সদর দফতর। প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: বরাদ্দকৃত জমির জন্য কেন্দ্রীয় আবাসন ও নগর বিষয়ক মন্ত্রকের কাছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বকেয়া ১৫০ কোটি টাকা। জানা গিয়েছে, বিজেপি-সহ ১৪টি রাজনৈতিক দলের দিল্লি পার্টি অফিসের জমির জন্য বকেয়া ওই বিপুল পরিমাণ অর্থ মকুব করতে চলেছে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকার।

সবচেয়ে বেশি বকেয়া বিজেপির!

দ্য প্রিন্ট-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০০ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে বাজার দরের থেকে অনেক কম দামে রাজনৈতিক দলগুলিকে জমি বরাদ্দ করেছিল কেন্দ্র। এই দলগুলির মধ্যে অন্যতম বিজেপি, কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল কংগ্রেস, জেডি (ইউ) এবং এআইএডিএমকে।

তবে উল্লেখযোগ্য ভাবে, কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি-কে বরাদ্দ জমির পরিমাণ এবং বকেয়া সবচেয়ে বেশি। দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গে তিনটি প্লট বরাদ্দ করা হয় বিজেপির জন্য। মোট ৪ একর জমি পেয়েছিল বিজেপি। জানা গিয়েছে, আবাসন মন্ত্রকের অধীনে ভূমি ও উন্নয়ন দফতরের কাছে সবচেয়ে বেশি, ৭০ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে বিজেপির।

অন্য দিকে, কোটলা রোডে কংগ্রেসকে যে ২ একর জমি বরাদ্দ করা হয়, তার জন্য বকেয়ার পরিমাণ ২০ কোটি টাকা।

বাজার দরের চেয়ে অনেক কম দাম

২০১৫ সালের আগস্টে দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গে বিজেপি-র জাতীয় সদর দফতর নির্মাণের জন্য ২ একর জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল। ২০১৪ সালের মার্চ এবং মে মাসে কোটলা রোড এবং দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গে যথাক্রমে.৪৫ একর এবং .২১ একর মাপের দু’টি ছোটো প্লট বরাদ্দ করা হয়েছিল সিপিএম-কে। তবে রাজনৈতিক দলগুলিকে দেওয়া জমির দাম ছিল বাজার দরের তুলনায় অনেক কম। যেমন, ২০০৭ সালের নভেম্বরে কোটলা রোডে ১.৯৯ একর জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল তৃণমূলকে। ওই জমির দাম নির্ধারিত হয় ২ কোটি টাকার কম। যদিও সেই সময়ে ওই জায়গায় জমির বর্তমান বাজারদর ছিল ১০০ কোটি টাকারও বেশি।

রাজনৈতিক দলগুলিকে জমি বরাদ্দ করা নিয়ে বিভাগ পরিবর্তনের প্রস্তাব করেছে মন্ত্রক। যাতে ‘প্রাতিষ্ঠানিক’ থেকে ‘কেন্দ্রীয় সরকার থেকে সরকার’ স্থানান্তর হিসেবে বর্ণনা করার প্রস্তাব রাখা হয়েছে। সরকারের কাছ থেকে সরকারি বিভাগের অধীনে জমির হার, প্রাতিষ্ঠানিক হারের তুলনায় তিন থেকে চার গুণ কম। এ ক্ষেত্রে জমি বরাদ্দ করা হয়েছে সেই নীতির উপর নির্ভর করে।

মন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে ২০০০-এর আগে প্রাতিষ্ঠানিক হারে জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল। যেহেতু ২০০০-২০১৭ সালের মধ্যে মন্ত্রক হারগুলি সংশোধন করতে পারেনি। প্রস্তাব অনুযায়ী, একটি পূর্বশর্ত-সহ জমির হার সংশোধন করা হলে রাজনৈতিক দলগুলির কাছ থেকে সংশোধিত হার অনুযায়ী দাম নেওয়া হবে। শোনা যাচ্ছে, ওই প্রস্তাবটি শীঘ্রই মন্ত্রীসভায় পাশ হতে চলেছে।

আরও পড়তে পারেন: 

বিলকিস বানো মামলা: দোষীদের মুক্তিকে চ্যালেঞ্জ করে আবেদন, শুক্রবার শুনানি সুপ্রিম কোর্টে

রতন টাটা-সাইরাস মিস্ত্রির সম্পর্কে চরম তিক্ততা, মুখ খুললেন টাটা সন্সের প্রাক্তন চেয়ারম্যানের সহযোগী

মোদী-হাসিনার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক, এই ৭টি মউ স্বাক্ষর করল ভারত-বাংলাদেশ

সব ধরনের ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন সুরেশ রায়না! তবে মাঠে নামতে পারেন শীঘ্রই, কী ভাবে

বিশ্বে প্রতি চার মিনিটে হাজার শিশুর জন্ম, চিনকে পিছনে ফেলে এগিয়ে ভারত

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন