Supreme court
ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: পাঁচ সমাজকর্মী গ্রেফতার মামলায় সুপ্রিম কোর্ট কি তা হলে আলো-আঁধারি ভাষায় কেন্দ্রীয় সরকারের দমন নীতিরই সমালোচনা করল? শুনানি চলাকালীন পাঁচ সদস্যের বেঞ্চের বক্তব্য শোনার পর তেমন প্ৰশ্নই উঠতে শুরু করেছে।

গত মঙ্গলবার হায়দরাবাদ থেকে সমাজকর্মী-কবি ভারভারা রাও, দিল্লি থেকে গৌতম নওলাখা, থানে থেকে অরুণ ফেরেইরা, মুম্বই থেকে ভার্নন গঞ্জালভেজ ও ফরিদাবাদ থেকে মানবাধিকার আইনজীবী সুধা ভরদ্বাজকে গ্রেফতার করে পুণে পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে মাওবাদী কার্যকলাপে যুক্ত থাকার অভিযোগেই এই গ্রেফতারি বলে জানায় পুলিশ। বুধবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র-সহ পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ জানিয়ে দেয়, অভিযুক্তদের বাড়িতেই নজরবন্দি করে রাখতে হবে। আগামী ৬ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির আগে তাঁদের কোনো মতেই পুলিশি হেপাজতে নেওয়া যাবে না।

এ দিন প্রধান বিচারপতি বলেন, “বহুমত হল গণতন্ত্রের সেফ্‌টি ভালভ। ফলে আপনি যদি সেফ্‌টি ভালভকে মান্যতা না দেন তা হলে প্রেসার কুকারে বিস্ফোরণ ঘটে যাবে”।


আরও পড়ুন: সমাজকর্মী গ্রেফতারে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ, ধৃতদের হেফাজতে নিতে পারবে না পুলিশ

পুলিশের তরফে অভিযোগ করে বলা হয়, অভিযুক্তরা বৃহত্তরও ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। দেশের ৩৫টি কলেজে তারা সদস্য সংগ্রহ করে বড়োসড়ো নাশকতার ছক কষেছেন। গত ১ জানুয়ারি ভিমা কোরেগাঁও-এর হাঙ্গামার সঙ্গে তাঁরা জড়িত। ওই ঘটনায় ধৃত অন্য অভিযুক্তদের জেরা করে তাঁদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহের পরই গ্রেফতার করা হয়েছে।

যদিও সর্বোচ্চ আদালত পুলিশকে পাল্টা প্রশ্ন করে, দীর্ঘ ৯ মাস পর কেন গ্রেফতার করা হল? জানা গিয়েছে, এমন প্রশ্নের তেমন কোনো সুদুত্তর দিতে পারেনি পুলিশ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন