arun jaitley corporate tax

ওয়েবডেস্ক: তিন বছর আগের দেওয়া একটি প্রতিশ্রুতি পূরণের জন্য চাপ বাড়ছে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির ওপরে। সেটি হল কর্পোরেট ট্যাক্স কমিয়ে আনা। শিল্প বিশেষজ্ঞদের মতে, কর্পোরেট ট্যাক্স ২৫ শতাংশে কমানোর যে প্রতিশ্রুতি অর্থমন্ত্রী করেছিলেন সেটিই এ বার তাঁর পূরণ করার পালা।

শিল্প মহলের বক্তব্য, এক দিকে কর্পোরেট ট্যাক্স কমিয়ে ভারতের ওপরে অলিখিত চাপ সৃষ্টি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এ বার আন্তর্জাতিক মহলে প্রতিযোগিতার বাজারে কর্পোরেট ট্যাক্স কমানো ছাড়া ভারতের আর কোনো উপায়ই নেই।

বর্তমানে কর্পোরেট ট্যাক্সের হার ৩০ শতাংশ। শিল্পমহল চায়, এই বাজেটে ২৫ শতাংশে কর কমিয়ে আনা সম্ভব না হলেও, অন্তত ২৮ শতাংশে কর কমানোর কথা ঘোষণা করুক কেন্দ্র। উল্লেখ্য, আগামী ১ ফেব্রুয়ারির বাজেটই হতে চলেছে বর্তমান এনডিএ সরকারের শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট।

২০১৫-১৬-এর বাজেটে অর্থমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেছিলেন, “আগামী চার বছরের মধ্যে কর্পোরেট ট্যাক্স ৩০ থেকে ২৫ শতাংশে কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিলাম। এর ফলে বিনিয়োগ বাড়বে, বৃদ্ধি বাড়বে এবং চাকরিও বাড়বে।” সেই প্রতিশ্রুতি এখনও পূরণ হয়নি।

বর্তমান আর্থিক অবস্থায় ট্যাক্সের হার ২৫ শতাংশে কমিয়ে আনা হবে, এমন আশা করেন না শিল্পপতিদের গোষ্ঠী ফিকির সভাপতি রসেশ শাহ। তবে তাঁর আশা অন্তত ২৮ শতাংশ ঘোষণা করবে কেন্দ্র। পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শাহ বলেন, “তারা যে নিজেদের প্রতিশ্রুতির পথ থেকে সরে আসনি, সেটা বোঝানোর জন্য অন্তত ২৮ শতাংশের কথা ঘোষণা করা হোক।” উল্লেখ্য, আর্থিক ঘাটতি মেটানোর জন্য বর্তমান আর্থিক বর্ষে বাড়তি ৫০,০০০ কোটি টাকা ধার নিচ্ছে কেন্দ্র।

শাহের বক্তব্য, ট্রাম্প প্রশাসনের পথ স্মরণ করেই কর কমানোর কথা ঘোষণা করুক কেন্দ্র। এর ফলে ভারতের শিল্পও আরও উন্নতির পথ দেখবে। গত ডিসেম্বরেই কর কমানোর প্রস্তাব পাশ হয় মার্কিন সেনেটে।

কনফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রির তরফ থেকে বলা হয়েছ্‌ কর্পোরেট ট্যাক্স আদতে ১৮ শতাংশে কমিয়ে আনা উচিত। শিল্পপতি অমিত সিংহানিয়াও মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্রও যখন কর কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে তখন ভারত এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত না নিলে পিছিয়ে পড়তে পারে। সিংহানিয়ার মতে, কৃষি ঋণ মকুবের ব্যাপারেও এ বার সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণের সময় এসেছে কেন্দ্রের। কর কমলে ভারতের বৃদ্ধি আরও বাড়তে পারে বলে মত শিল্পপতি গোকুল চৌধুরীর।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন