প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরাকে আটক করল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ

ওয়েবডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের সোনভদ্রে গ্রামপ্রধানের এলোপাথাড়ি গুলিতে নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পথেই আটকে দেওয়া হল কংগ্রেসনেত্রী প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরাকে। পুলিশের বাধা পেয়ে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে রাস্তার উপরই বসে পড়েন প্রিয়ঙ্কা। এর পরই পুলিশ তাঁকে আটক করে।

গত বুধবার সোনভদ্রে জমি-বিবাদকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায়। ৩৬ একর জমিকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের বচসা চলাকালীন স্থানীয় গ্রামপ্রধান এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করেন বলে অভিযোগ। ওই ঘটনায় ১০ জনের মৃত্যু হয়। শুক্রবার নিহতদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাঁদের সমবেদনা জানানোর জন্য রওনা দেন প্রিয়ঙ্কা।‌

কিন্তু মির্জাপুরের কাছে নারায়ণপুরে পৌঁছানো মাত্রই তাঁকে আটকে দেয় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। প্রিয়ঙ্কা পুলিশের কাছে বলেন, “নিহতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে চাই। সবাই নয়, মাত্র চার জনকে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হোক”।

এর পরেও পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো সদর্থক পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে দাবি করেন প্রিয়ঙ্কা। তিনি বলেন, “তার পরেও আমাদের যেতে দেওয়া হয়নি। প্রশাসন কেন আমাদের আটকে দিল, তার ব্যাখ্যা না-মেলা পর্যন্ত এখানেই বসে থাকব”।

রাস্তায় বসে পড়া প্রিয়ঙ্কা সেখানেই ছেড়ে দেয়নি পুলিশ। তাঁকে নিজেদের গাড়িতে করে নিয়ে যায় পুলিশ আধিকারিকরা। প্রিয়ঙ্কা সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানান, “জানি না ওরা আমাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে”?

বিজেপি সরকারের অপদার্থতার কারণেই উত্তরপ্রদেশে দুষ্কৃতীদের বাড়বাড়ন্ত হয়েছে বলে অভিযোগ করেন প্রিয়ঙ্কা। তাঁকে কোন আইনে আটকানো হল, সে প্রশ্নও করেছেন তিনি। জানা গিয়েছে, পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয় প্রিয়ঙ্কাকে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.