priyanka chopra

ওয়েবডেস্ক: ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর রাজ্যের সংস্কৃতিকে তুলে ধরবেন, নিজের শরীর নয়! এই বক্তব্যেই উত্তাল হল অসম বিধানসভা। প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে খোলামেলা পোশাকে দেখিয়ে বিশ্বদরবারে অসমের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে কেন্দ্রীয় সরকার, এমন বক্তব্যেই বিক্ষোভে  শামিল হলেন অসমের দুই বিধায়ক।

‘টাইমস৮’ নামের সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, সম্প্রতি অসম বিধানসভায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বোকো বিধায়ক নন্দিতা দাশ এবং আরেক বিধায়ক রূপজ্যোতি কুরমি। সম্প্রতি অসম পর্যটন উন্নয়ন মন্ত্রক প্রকাশিত ক্যালেন্ডারে রাজ্যের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার খোলামেলা পাশ্চাত্য পোশাকই এই আপত্তির কারণ।

বিধানসভায় উপস্থিত সাংবাদিকদের এই মর্মে নিজের আপত্তির কথা জানিয়েছেন অসম কংগ্রেস বিধায়ক রূপজ্যোতি কুরমি। “প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে ছবিতে যে পোশাকে দেখা গিয়েছে, তা তো অসম সংস্কৃতির পরিচায়ক নয়। আমার আপত্তিটা এখানেই। তা ছাড়া পোশাকটা ভদ্রও নয়। কেন্দ্রীয় সরকারের কী ভাবে অসমের সংস্কৃতিকে উজ্জ্বল করে তুলতে হয়, তা শেখা বাকি আছে! এ রকম একটা পোশাক পরিয়ে ছবি তোলানোর মানেটা কী? অসমের ধ্রুপদী লাল-সাদা মেখলা কী দোষ করল?” প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন কুরমি।

priyanka chopra

বিধায়করা যা-ই বলুন, অসম পর্যটন উন্নয়ন মন্ত্রকের সভাপতি জয়ন্ত মল্লবড়ুয়া ঘটনায় দোষের কিছু দেখছেন না। ‘জি প্লাস’ নামের এক গুয়াহাটির সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া বিবৃতিতে তিনি জানিয়েছেন, “ওই বিজ্ঞাপনটা বিশেষ করে পাশ্চাত্য দরবারে অসম পর্যটনকে তুলে ধরার জন্য তৈরি করা হয়েছে। সেই জন্য ছবিতে প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে পাশ্চাত্য পোশাকে দেখানো হয়েছে। আমার মনে হয় না যে অসমের সংস্কৃতি এতে কোনো রকম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে!”

বিধায়করা যদিও তাঁদের যুক্তি দেখিয়ে ওই বিজ্ঞাপনটি প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবিতে অটল রয়েছেন, তবুও ঘটনাটিতে পাত্তা দিতে চাইছেন না অসমের পর্যটনমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মাও। ছবিতে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া যে বিরাট টুপি পরে রয়েছেন, যাকে অসমে জাপি বলে, তার সূত্র ধরে সাফাই গাইছেন বিশ্বশর্মা। “বিদেশিরা কি আগে ধুতি পরে নিয়ে তার পর জাপি পরে ছবি তোলে? তা ছাড়া আমরাও তো মঞ্চে ওঠার সময়েও শার্ট-প্যান্টের সঙ্গেই জাপি পরি”, জানিয়েছেন তিনি।

ছবি ও খবর সৌজন্য: ‘টাইমস৮’

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here