নিজস্ব সংবাদদাতা, গুয়াহাটি : সরকারি কর্মীরা যাতে বাবা-মার দেখভাল করতে বাধ্য হয়, তার জন্য এক অভিনব পথে হাঁটতে চলেছে অসম। ব্যবস্থা হচ্ছে সরকারি কর্মীদের মাইনে কাটার। সেই টাকা পাবেন বাবা-মা। এই প্রস্তাব অসমের অর্থমন্ত্রী ডঃ হিমন্ত বিশ্ব শর্মার। রাজ্যের সরকারি, আধা সরকারি প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানিগুলিতে কর্মরতরা যাতে বৃদ্ধ বাবা-মাকে নির্যাতন করতে না পারেন তার জন্য ব্যবস্থা করতে চেয়েছেন হিমন্ত। তার জন্য ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে কঠোর আইন আনার প্রস্তাব করেছেন এ বারের রাজ্য বাজেটে।

উল্লেখ্য, অসমের সরকারি কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ। সরকারি কর্মচারীদের পরিবারে যাতে বাবা-মাকে হেনস্থার ঘটনা না ঘটে তার জন্যই আইন আনা হবে। এমনকি সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর হাতে যদি তাঁর বাবা-মা লাঞ্ছিত হন তা হলে তাঁদের মাইনে থেকে টাকা কাটা হবে। সেই টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হবে বাবা-মায়ের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। তা ছাড়া বয়োঃজ্যেষ্ঠদের প্রতি যাতে উপযুক্ত যত্ন নেওয়া যায়, মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়ালের নেতৃত্বাধীনে রাজ্যের বিজেপি জোট সরকার সে দিকে বেশি গুরুত্ব দেবে বলে উল্লেখ করেছেন অর্থমন্ত্রী শর্মা। তিনি বলেন, পরিবর্তনশীল জনসংখ্যায় ৬০ বছরের বেশি বয়সের লোকের হার ক্রমশ বাড়ছে। তাই পারিবারিক পরিকাঠামোর মাধ্যমেই এঁদের সেবা করতে হবে। এ ক্ষেত্রে রাজ্যের সমাজকল্যাণ বিভাগকে চলতি অর্থবর্ষের মধ্যেই আইন প্রণয়নের প্রস্তাব দিয়েছেন হিমন্ত। তিনি বলেন, সমাজে মানুষ যতই শিক্ষিত আর আধুনিক হচ্ছে, ততই যেন বৃদ্ধ বাবা-মায়ের সেবায় গাফিলতি বাড়ছে। এই জন্য এই আইনটি জরুরি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন