Prakash Javadekar
[প্রকাশ জাভাড়েকর। ফাইল ছবি]

নয়াদিল্লি: করোনাভাইরাস মহামারীকে (Coronavirus pandemic) কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন জায়গায় হামলার মুখে পড়তে হচ্ছে চিকিৎসক এবং স্বাস্থকর্মীদের। পরিস্থিতির দিকে নজর রেখে কেন্দ্র অর্ডিন্যান্স নিয়ে এসেছে বলে জানালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভাড়েকর (Prakash Javadekar)।

মন্ত্রী বলেন, স্বাস্থ্যকর্মীদের গাড়ি অথবা ক্লিনিকে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হলে বাজারমূল্যের থেকে দ্বিগুণ আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। ক্ষতিপূরণের অর্থ হামলাকারীদের কাছ থেকে আদায় করা হবে। প্রয়োজনে সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হতে পারে।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরও সুরক্ষিত করতে এপিডেমিক ডিজিজেস অ্যাক্ট, ১৮৯৭-এর সংশোধন করা হয়েছে। হামলায় জড়িত থাকলে করলে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের হবে। সে ক্ষেত্রে অভিযোগ প্রমাণিত হলে ৫০ হাজার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানা, সাত বছর পর্যন্ত হাজতবাসের প্রস্তাব রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, অ-গুরুতর হামলার ক্ষেত্রে ৫০ হাজার থেকে দু’লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানা এবং ছ’মাস থেকে পাঁচ বছরের জেল হতে পারে। অন্য দিকে গুরুতর হামলার ক্ষেত্রে দু’লক্ষ থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আর্থিক জরিমানা এবং সাত বছর পর্যন্ত হাজতবাস ধার্য্য হবে।

এ দিন তিনি জানিয়ে দেন, অর্ডিন্যান্স অনুযায়ী হামলার ঘটনার তদন্ত এক মাসের মধ্যে সম্পূর্ণ হবে এবং এক বছরের মধ্যে বিচার শেষ হবে।

একই সঙ্গে তিনি জানান, র‌্যাপিড অ্যান্টিবডি পরীক্ষা একটি নজরদারির সরঞ্জাম। এটা কোনো সন্দেহভাজন ব্যক্তির মধ্যে কোভিড -১৯ পজিটিভ পরীক্ষা করতে পারে না।

আরও পড়ুন: র‌্যাপিড টেস্ট কিটের মতো আরটিপিসিআর কিটও তুলে নিয়েছে কেন্দ্র, জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

অন্য দিকে আগামী ৩ মে লকাডাউন ওঠার পর বিমান পরিষেবা শুরু হওয়া নিয়ে জল্পনা উড়িয়ে তিনি জানান, এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন