পুলিশের জালে অভিযুক্ত।

নয়াদিল্লি: প্রথমে অপহরণ, তার পর পা ভেঙে দিয়ে ধর্ষণ। সব শেষে খুন। এ ভাবেই ন’জন নাবালিকাকে খুন করে অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়ল অভিযুক্ত সাইকো কিলার।

অভিযুক্ত যুবক বছর কুড়ির সুনীল কুমার। গত ১১ নভেম্বর ঠিক একই ভাবে এক নাবালিকাকে ধর্ষণের পরে খুন করে সে। সেই ঘটনায় তদন্তে নেমে গত সোমবার সুনীলকে পাকড়াও করে গুরুগ্রাম থানার পুলিশ। কিন্তু তার পর পুলিশের জেরায় সে এমন স্বীকারোক্তি করেছে, তাতে কার্যত হতভম্ব পুলিশ।

পুলিশি জেরায় সে জানিয়েছে, গত দু’ বছর ধরে দিল্লি এবং আরও তিনটে শহরে, সে মোট ন’জন নাবালিকাকে ধর্ষণ করে খুন করেছে। সবারই বয়স তিন থেকে সাত বছরের মধ্যে। গুরুগ্রাম থানার জনসংযোগ আধিকারিক সুভাষ বোকেন বলেন, “নাবালিকাদের অপহরণের পরে, প্রথমে তাদের পা ভেঙে দিত সে। তার পর ধর্ষণ করে খুন করত।”

আরও পড়ুন “এক মাত্র বিজেপিই পারে…”, মেয়রপদে জিতে বললেন দলের ‘চাউমিনওয়ালা’ নেতা

আপাতত অভিযুক্তের আট দিনের জন্য পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। তবে পুলিশ জানিয়েছে এখনও কোনো আইনজীবী তার হয়ে দাঁড়াতে রাজি হচ্ছেন না।

কিন্তু এ ভাবে দেশ জুড়ে ঘটে যাওয়া একের পর এক শিশু অপহরণ-ধর্ষণের ঘটনা কী করে ঠেকানো যাবে। চাইল্ড রাইট্‌স অ্যান্ড ইউয়ের (ক্রাই) আধিকারিক প্রীতি মেহরা বলেন, “সরকারের তরফ থেকে কড়া আইনের কথা বলা হলেও এখনও যে ভাবে নাবালিকাদের ওপরে অত্যাচার, ধর্ষণের ঘটনা ঘটে, সেটা খুবই দুঃখজনক।” তিনি আরও বলেন, “পুলিশ, প্রশাসন এবং গোটা সমাজের উচিত, নিগৃহীতাদের পাশে থাকা।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here