পুনে: গর্ভধারণে ব্যর্থ হচ্ছিলেন মহিলা। স্বামী এবং শ্বশুরবাড়ির লোকজন আয়োজন করলেন এক ধর্মীয় অনুষ্ঠানের। হাজির হলেন এক ‘মান্ত্রিক’ (যিনি পুজো বা মন্ত্রপাঠ করেন)। এর পর যা ঘটল, তা এ যুগে অকল্পনীয় তো বটেই! ওই অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে মহিলাকে স্নান করতে বাধ্য করা হল জনসমক্ষেই। স্ত্রীকে নির্যাতন করার অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে স্বামী ও অন্যদের বিরুদ্ধে।

সোমবার পুনে পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, মহিলা যাতে সে গর্ভধারণ করতে পারেন, তার জন্য আয়োজিত ধর্মীয় অনুষ্ঠানের অংশ হিসাবে একেবারে খোলামেলা জায়গায়, একটি জলপ্রপাতের নীচে স্নান করতে বাধ্য করা হয় মহিলাকে।

ভারতী বিদ্যাপীঠের এক পুলিশ আধিকারিক জানান, তাঁদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা ৪৯৮ (একজন মহিলার স্বামী বা তাঁর স্বামীর আত্মীয়র হাতে নির্যাতনের শিকার হওয়া) এবং মহারাষ্ট্র প্রতিরোধ এবং মানব বলিদানের নির্মূল এবং অন্যান্য অমানবিক, অঘোরি অনুশীলন এবং কালো জাদু আইন, ২০১৩-এর প্রাসঙ্গিক ধারাগুলির অধীনে মামলা করা হয়েছে।

ওই পুলিশকর্তা বলেন, “দম্পতির সন্তান হয়নি। মান্ত্রিকের পরামর্শে, মহিলাকে রায়গড় জেলার একটি জলপ্রপাতের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সকলের সামনেই তাঁকে স্নান করতে বাধ্য করা হয়েছিল। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে”।

আরও পড়তে পারেন: ‘রাহুল গান্ধী না হলে অনেকেই আছেন…’, দলের সভাপতি নির্বাচন নিয়ে অশোক গহলৌত

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন