rahul gandhi attacks modi and ambani
রাহুল গান্ধী (ফাইল ছবি)

নয়াদিল্লি: দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জানিয়ে দিয়েছিলেন, কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁরা জোটের জন্য তৈরি হলেও, সে ব্যাপারে কোনো আগ্রহ দেখাচ্ছে না কংগ্রেসই। ফলে কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের কোনো সম্ভাবনা নেই বলে দাবি করেছিলেন তিনি। কিন্তু শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে হঠাৎ পরিস্থিতি বদলে যেতে শুরু করেছে। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর সম্মতি আসার পর আমআদমি পার্টির (আপ) সঙ্গে জোটের তোড়জোড় শুরু করেছেন কংগ্রেস।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কংগ্রেসের এক নেতা জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত থেকে আপের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে কংগ্রেস। আপের এক শীর্ষস্থানীয় নেতার সঙ্গে এই ব্যাপারে কথাবার্তা শুরু হয়েছে। লোকসভায় সাত জন সদস্য পাঠায় দিল্লি।

Loading videos...

উল্লেখ্য, আপের সঙ্গে কোনো রকম জোটে যাওয়ার ব্যাপারে রাজি ছিল না দিল্লি কংগ্রেস, বিশেষত দিল্লি কংগ্রেসের সভাপতি অজয় মাকেন। কিন্তু কয়েক মাস আগেই সেই পদ খুইয়েছেন মাকেন। মনে করা হচ্ছে, আপকে জোটের বার্তা দেওয়ার জন্যই এই পদক্ষেপ করেছিল কংগ্রেস।

আরও পড়ুন ভোটের আবহে বড়ো ঘোষণা করলেন রাহুল গান্ধী

কিন্তু সমস্যা এখানেই কাটছে না। জোটের ব্যাপারে যদি দুই দল রাজিও হয়, সমস্যা তৈরি হবে আসন বণ্টন নিয়ে। কংগ্রেসের ফর্মুলা হল দুই দলই তিনটে করে আসনে প্রার্থী দিক, বাকি একটি আসনে কোনো সেলেব্রিটি প্রার্থীকে দাঁড় করানো হোক। কিন্তু এই রফায় কোনো ভাবেই রাজি নয় আপ।

আপের এক শীর্ষ নেতা বলেন, “দিল্লি বিধানসভার ৭০ আসনের মধ্যে ৬৭টি আসন জিতেছি আমরা। কী ভাবে ৩+৩+১ ফর্মুলা মেনে নেব? আমরা দিল্লিতে কংগ্রেসকে একটা আসন ছেড়ে দিয়ে ছ’টায় প্রার্থী দিতে চাই।”

আপের এই ফর্মুলা আবার কংগ্রেস যে সহজে মেনে নেবে, সেটাও নয়। কিন্তু জোট যে জরুরি, সেটা কংগ্রেস এবং আপ, দুই তরফই বুঝতে পারছে। কারণ সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, দিল্লিতে একা লড়লে কংগ্রেসের ভাগ্য খুব একটা ভালো হবে না। আর যদি আপ এবুং কংগ্রেস বিজেপির বিরুদ্ধে আলাদা আলদা প্রার্থী দেয়, সে ক্ষেত্রে ভোট ভাগাভাগির ফায়দা তুলে সাতটি আসনেই বাজিমাত করে ফেলতে পারে বিজেপি।

সব মিলিয়ে ভোটের আগে জোট-ব্যস্ততা এখন কংগ্রেস এবং আপ শিবিরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.