নয়াদিল্লি: ‘কেদারনাথে কু ঝিকঝিক’ বা ‘ট্রেন যাত্রায় যমুনোত্রী’। আজ থেকে কয়েক বছর পর বাংলা ভ্রমণসাহিত্যে যদি এ রকম নামে ভ্রমণকাহিনি প্রকাশিত হয়, তা হলে এতটুকু অবাক হওয়ার থাকবে না। সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই উত্তরাখণ্ডের চারধামে পৌঁছে যাবে ট্রেন। এমনই উদ্যোগ নিয়েছে ভারতীয় রেল।

উত্তরাখণ্ডের গাড়োয়াল অঞ্চলে অবস্থিত কেদারনাথ, বদরিনাথ, গঙ্গোত্রী এবং যমুনোত্রী। এক সঙ্গে চারধাম হিসেবে পরিচিত। তীর্থযাত্রী হোক, কী শুধু পাহাড়প্রেমী, সকলের কাছেই জনপ্রিয় এই চারধাম। কেদারে শিব, বদরিনাথে নারায়ণ, গঙ্গোত্রীতে মা গঙ্গা এবং যমুনোত্রীতে মা যমুনার দর্শন পেতে চলে যান ভক্তকুল। পাহাড়প্রেমীরা যান ট্রেকিং-এর মাধ্যমে নতুন অ্যাডভেঞ্চারের সাক্ষী হতে। সমুদ্রতল থেকে ১০,৫০০ ফুট এবং ১১,৫০০ ফুটের মধ্যে অবস্থিত এই চারধাম। গঙ্গোত্রী এবং বদরিনাথে গাড়ি যায়, বাকি দু’টোর জন্য পা-ই ভরসা। এই চারধামে এ বার ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্র।

এই সপ্তাহেই ট্রেন চালানোর উদ্দেশ্যে এই অঞ্চলে চূড়ান্ত সমীক্ষায় নামছে রেল বিকাশ নিগম লিমিটেড (আরভিএনএল)। উল্লেখ্য, গত ২০১৪-১৫ অর্থবর্ষে প্রাথমিক ভাবে একটি অবস্থানগত সমীক্ষা করেছিল আরভিএনএল। ২০১৫-এর অক্টোবরে এই সমীক্ষার রিপোর্টটি রেল মন্ত্রকের কাছে জমা পড়ে। সেখানে দেখা যায় পুরো প্রকল্পে খরচ হবে ৪৩,২৯২ কোটি টাকা এবং মোট ৩২৭ কিমি লাইন পাতা হবে। এই যাত্রাপথে তৈরি হবে একুশটি রেলস্টেশন, ৬১টি টানেল এবং ৫৯টি রেল সেতু। ৩২৭ কিমির মধ্যে মোট টানেল দুরত্বই হবে ২৭৯ কিমি। হিমালয়ের দুর্গম এলাকার মধ্যে দিয়ে ব্রডগেজ লাইন পাতা যে ভারতীয় রেলের কাছে বিশেষ চ্যালেঞ্জ তা বলাই বাহুল্য।

২০১৩-এর স্মৃতি ফিরে আসবে না তো?

কিন্তু এখানে রয়েছে একটি প্রশ্ন। অতি উচ্চতায় ট্রেন লাইন তৈরি করতে হলে পাহাড় নতুন ভাবে ভাঙতে হবে, কাটতে হবে। পাহাড়ের ওপর চূড়ান্ত অত্যাচার চালানো হবে। যে রাজ্যে গঙ্গা, যমুনার পাশাপাশি পাহাড়কেও জীবন্ত সত্তার আখ্যা দেওয়া রয়েছে, সে রাজ্যে সেই পাহাড়ের গায়ে এই অত্যাচার কি যুক্তিযুক্ত? সব থেকে বড়ো ব্যাপার, এর ফলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হবে না তো! ২০১৩-এর স্মৃতি এখনও টাটকা উত্তরাখণ্ডবাসীর মনে। ওই ভয়াবহ বন্যার জন্য তখন মূলত দায়ী করা হয়েছিল লাগামছাড়া নির্মাণকাজকে। নদীর পথ আটকে, পাহাড়ের গায়ে জঙ্গল কেটে যে ভাবে নির্মাণকাজ হয়েছিল, তার ফলেই এত ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল বন্যা।

আশা করা যায় পরিবেশের সব দিকগুলি মাথায় রেখেই এই প্রকল্প বাস্তবায়িত করবে কেন্দ্র।

ছবির গ্যালারি:

হিল স্টেশনে রেল স্টেশন

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here