Gyan-Dev-Ahuja
ছবি : ইন্টারনেট থেকে নেওয়া

ওয়েবডেস্ক: বির্তকিত উক্তিতে তিনি অনুব্রত মণ্ডলের (কেষ্ট) চেয়ে কোনো অংশে কম যান না। দলে ‘একনায়কতন্ত্র চলছে’ অভিযোগ তুলে দল ছাড়লেন রাজস্থানের সেই বিজেপি বিধায়ক জ্ঞান দেব আহুজা। রবিবারই তিনি রাজস্থান বিজেপি নেতৃত্বের কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন।

আলোয়ার জেলার রামগড় থেকে আহুজা বিধায়ক হয়েছিলেন। কিন্তু এ বার আর তাঁকে টিকিট দেওয়া হয়নি। রবিবারই সাংবাদিকদের তিনি পদত্যাগের কথা জানিয়ে দেন। কারণ হিসাবে তিনি বলেন, দলে একনায়কতন্ত্র চলছে। কী কারণে তাঁকে টিকিট দেওয়া হয়নি তা জানানো পর্যন্ত হল না। তাই তিনি পরিবার এবং সমর্থকদের দাবিমতো দল ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে তিনি নির্দল প্রার্থী হিসাবে ভোটে দাঁড়াবেন বলে জানিয়েছেন, জ্ঞান দেব আহুজা। তাঁর নির্বাচনী ইস্যু হবে, হিন্দুত্ব, রাম জন্মভূমি এবং গোরক্ষা।

রাজস্থান বিজেপি তিন দফায় ২০০টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ১৭০ জনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে। এই তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন একাধিক বিধায়ক এবং মন্ত্রী। কারণ হিসাবে লোকসভা উপনির্বাচনে কংগ্রেসের জয়কেই মনে করা হচ্ছে। গত রবিবার প্রথম দফার প্রার্থী তালিকা প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে দলে কার্যত ‘পদত্যাগের হিড়িক’ পড়ে যায়। সেই তালিকায় নয়া সংযোজন জ্ঞান দেব আহুজা।

আরও পড়ুন : বৈঠকের আগেই রয়টার্সের কাছে কেন্দ্রের চাপের কথা স্বীকার করলেন দুই আরবিআই বোর্ড সদস্য!

মন্ত্রিত্ব না পাওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের উপর গত বছর থেকেই ক্ষুব্ধ ছিলেন আহুজা। ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে একাধিক সরকারি কমিটি থেকে তিনি পদত্যাগ করেন। এ বছরের গোড়ার দিকে তিনি তাঁর একটি অডিও টেপ প্রকাশিত হয়। যে অডিও টেপে শোনা যায় তিনি লোকসভা উপনির্বাচনে হারের জন্য বসুন্ধরা রাজেকেই দায়ী করছেন।

বির্তকিত মন্তব্যের জন্য একাধিক বার তিনি আলোচনায় উঠে এসেছেন। তবে জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তাঁর মন্তব্য সব চেয়ে আলোড়ন তোলে। তিনি দাবি করেছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয় চত্ত্বরে প্রতি দিন পাওয়া যায় ৫০ হাজার হাড়, ৩ হাজার ব্যবহৃত কন্ডোম, ৫০০ গর্ভপাতের ইনজেকশন, ১০ হাজার সিগারের অংশবিশেষ। তাঁর আরও দাবি ছিল, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীরা উলঙ্গ হয়ে নাচে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here