চেন্নাই: রাজনীতিতে রজনীকান্ত। এই ঘটনা আদৌ ঘটবে কি না সে ব্যাপারে জল্পনা এখন তুঙ্গে। শুধু তামিলনাড়ু নয়, ‘থালাইভা’ কী করেন সে দিকে মুখিয়ে রয়েছে তামাম ভারত। এই ব্যাপারে পুরোপুরি খোলসা না করলেও কিছুটা মুখ খুলেছেন তিনি।

গত পাঁচ দিন ধরে নিজের ভক্তদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন রজনী। সাক্ষাতের প্রথম দিন তিনি বলেছেন রাজনীতিতে আসার ব্যাপারে আদৌ ইচ্ছুক নন তিনি, কিন্ত শুক্রবার সাক্ষাতের পঞ্চম দিনে রজনী আকারে ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিলেন যে রাজনীতিতে আসার ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা শুরু করেছেন তিনি।

নিজের ভক্তদের তিনি বলেন, যত বিরোধিতাই  আসুক না কেন, তাঁরা যেন সব সময় নিজেদের মাথা ঠান্ডা রাখেন। এ বার নিজের চিরাচরিত ঢঙে একটি গল্প বলেন তিনি। একটা গাছ কী ভাবে বেড়ে ওঠে তার উদাহরণ দিয়ে রজনী বলেন, “মাটিতে গর্ত করে আমরা শুরু করি। প্রথমে সেখানে বীজ দেওয়া হয়, তার পর সার এবং মাটি দিয়ে সেই গর্ত বুজিয়ে দেওয়া হয়। মাটিটা বুজিয়ে আদতে বীজের ওপরেই চাপ সৃষ্টি করা হয়। যাতে সে বেড়ে ওঠে। এর মানে হল আমাদের বিরোধীরা আদতে মাটি এবং সার। তারা আমাদের বেড়ে উঠতে সাহায্য করে।”

এর পরে ভক্তদের উদ্দেশে আরও একটি গল্প বলেন তামিল সুপারস্টার। “আগেকার দিনে রাজাদের সৈন্যদলে বেশি সদস্য থাকত না। যখন যুদ্ধ লাগত তখন তারা রাজার সৈন্যদলে যোগ দিত। কিন্তু যখন যুদ্ধ হত না, তারা চাষবাসের কাজ করত। কিন্তু নিজেদের শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য শারীরিক কসরৎ করতে হত। ঠিক এ রকম ভাবে তোমাদের এবং সেই সঙ্গে আমারও অনেক দায়িত্ব রয়েছে। যখন যুদ্ধ লাগবে, দেখা যাক কী হয়। ভগবান তো রয়েছেন।”

উল্লেখ্য, এই সাক্ষাতের প্রথম দিন রজনী বলেছিলেন, “আমি কোনো রাজনৈতিক দলে যোগ দিচ্ছি না, রাজনীতিকরা রাজনীতিকে ব্যবসায় পরিণত করে ফেলেছেন। নিজেদের সুবিধার্থে আমার নাম ব্যবহার করছে রাজনীতিকরা। আমার ভবিষ্যৎ ঠিক করে দেবেন একমাত্র ভগবান।”

প্রসঙ্গত তাঁকে নিজেদের দলে নিতে মুখিয়ে রয়েছে বিজেপি। ভারতের মধ্যে একমাত্র তামিলনাড়ুতে বিজেপির ভোটব্যাঙ্ক সব থেকে দুর্বল। সেই ভোটব্যাঙ্ক শক্তিশালী করতে রজনীকেই হাতিয়ার করেছে তারা। কারণ রজনীর ‘ফ্যান বেস’-এর ব্যাপারে সবাই ওয়াকিবহাল। তামিলনাড়ুর অধিকাংশ জনগণ তাঁর কথা মানেন, সে-ও বিজেপির জানা। ১৯৯৬ সালে তাঁর ডাকেই জয়ললিতার এআইএডিআইএমকে-কে হারিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিল ডিএমকে এবং তামিল মানিলা কংগ্রেস জোট। তাই রজনীর হাত ধরেই তামিলভূমে প্রবেশ করতে চাইছেন নরেন্দ্র মোদী।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here