ওয়েবডেস্ক: রামনাথ কোবিন্দ রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়ে গেছেন। তাঁর পক্ষে কিছু ক্রস ভোটিং-ও হয়েছে। অর্থাৎ অন্য দলের জনপ্রতিনিধিরাও গোপনে তাঁকে ভোট দিয়েছেন। তা নিয়ে বিতর্কও চলছে। কিন্তু সে সবের পরেও ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যাচ্ছে ১৯৭৪ সালের পর থেকে যারা ভারতের রাষ্ট্রপতি হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে সবচেয়ে কম ভোট পেয়েছেন রামনাথ কোবিন্দই।

আরও পড়ুন: ভারতের চতুর্দশ রাষ্ট্রপতি হলেন রামনাথ কোবিন্দ, জেনে নিন তাঁর সম্পর্কে ৫টি তথ্য

১০,৯০,৩০০ ইলেক্টোরাল কলেজের মধ্যে ৭,০২,০৪৪ অর্থাৎ ৬৫.৬৫%ভোট পেয়েছেন কোবিন্দ। তাঁর পূর্ববর্তী রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় পেয়েছিলেন ৬৯.৩১% ভোট। প্রণববাবুর আগের রাষ্ট্রপতি প্রতিভা পাটিল পেয়েছিলেন কোবিন্দের চেয়ে সামান্য বেশি, ৬৫.৮২% ভোট।

১৯৯৭ সালে কে আর নারায়ণন পেয়েছিলেন ৯৪.৯৭% এবং ২০০২ সালে এপিজে আব্দুল কালাম পেয়েছিলেন ৮৯.৫৭% ভোট। ১৯৭৪ সালের পরবর্তী সময়কালের রাষ্ট্রপতিদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন এরা দু’জনই।

একমাত্র নিলম সঞ্জীব রেড্ডি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দেশের সাংবিধানিক প্রধান নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেটা ছিল ১৯৭৭ সাল। এর পর জ্ঞানী জৈল সিং পান ৭২.৭৩% ভোট(১৯৮৪), আর বেঙ্কটরামন পান(১৯৮৭) ৭২.২৮% এবং শঙ্করদয়াল শর্মা(১৯৯২) ৬৫.৮৭% ভোট।

নারায়ণন ছাড়া মাত্র দু’জন রাষ্ট্রপতি ৯০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছেন। তাঁরা হলেন, রাজেন্দ্র প্রসাদ(৯৮.৯৯%)(১৯৫৭ সাল) এবং সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ (৯৮.৪%)(১৯৬২ সাল)।

আরও পড়ুন: রাষ্ট্রপতি হওয়ার আগে ভারতের সাংবিধানিক প্রধানদের পেশা কী ছিল

সবচেয়ে কম ভোটের ব্যবধানে জিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন ভিভি গিরি(১৯৬৯ সাল)। গিরি মাত্র ৪৮% ভোট পেয়েছিলেন। জানা যায়, কংগ্রেসের মধ্যেকার ‘সিন্ডিকেট’-এর জন্যই অত কম ভোট পেয়েছিলেন গিরি। সেবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থীও সংখ্যা ছিল ১৫। যা ভারতের ইতিহাসে এখনও সর্বাধিক। গিরির পূর্বসূরি ফকরুদ্দিন আলি আহমেদ পেয়েছিলেন ৫৬.২৩% ভোট।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন