‘ন্যানো’ নিয়ে এমন কোন কাহিনি বললেন রতন টাটা, যা শুনে মানুষ এতটা অনুপ্রাণিত

0

কলকাতা: নাম রতন টাটা। অন্য কোনো পরিচয়ের প্রয়োজন নেই। ফলে ইনস্টাগ্রামে কোনো পোস্ট করলেই মন্তব্যের ঝড় তোলেন ফলোয়ার্সরা। আসলে তাঁর নিজের কথা, নিজের চিন্তাভাবনা এবং অনুপ্রেরণামূলক কাহিনির সরলতায় ডুবে যান নেটিজেনরা। সর্বশেষ পোস্টে এমন একটি কাহিনির পুনরাবৃত্তি করেছেন, যার চর্চার মুখ অবশ্য বহুবিধ।

টাটা ন্যানোর কথা লিখেছেন রতন টাটা। জানিয়েছেন এই গাড়ি নিয়ে নিজের স্বপ্নের কথা। অনুপ্রেরণার উৎস। কিন্তু গাড়ির নামটাই যে আলোচনার রসদ! কিন্তু মজার বিষয় আর সব কিছুর ঊর্ধ্বে ওঠে এই কাহিনিতে শুধুই সুমধুর মন্তব্যে মেতেছে নেটমাধ্যম। তাঁকে এবং তাঁর অনুপ্রেরণাকে কতটা ভালোবাসে মানুষ, গোটা বিশ্ব, সে সবেই ভরেছে কমেন্ট বক্স।

ন্যানোর উৎসে পৌঁছে গিয়েছেন ভারতের অগ্রগণ্য শিল্পপতি। লেখেন, “এ দেশের পরিবারকে আমি স্কুটারে চড়তে দেখেছি। যেখানে একটা শিশু তার মা-বাবার মাঝখানে স্যান্ডউইচের মতো চেপ্টে বসে। কখনো কখনো পিচ্ছিল রাস্তাতেও এ ধরনের দৃশ্য দেখেছি। এই একটা কারণই আমার মনে ন্যানো তৈরি করার ইচ্ছে জাগিয়েছিল। সেটাই আমার অনুপ্রেরণা”।

তিনি আরও লেখেন, “স্কুল অব আর্কিটেকচারে পড়ার সুফল পেলাম। নতুন ডিজাইন নিয়ে কাজের চেষ্টা করার সময় পেয়েছি। প্রথমে ভেবেছিলাম দু’চাকার স্কুটার-বাইককে কী করে নিরাপদ করা যায়। এর জন্য একটা নকশাও তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু সেই নকশাটা শুধু চার চাকারই ছিল, কোনো দরজা-জানালা ছিল না। শেষমেশ আমি সিদ্ধান্ত নিলাম এটা একটা গাড়ি হবে। আমরা সবসময়ই সাধারণের জন্য ন্যানো গাড়ি তৈরি করেছি”।

এই পোস্ট সাঁটানোর পরই কমেন্ট বক্সে ‘হার্ট’ উপচে পড়ে। এক দিনে ১০ লক্ষের বেশি ‘হৃদয়’ জিতেছেন রতন টাটা। ন্যানো তৈরি করার চিন্তাভাবনার উৎস এবং কী ভাবে সেটা তাঁকে অনুপ্রাণিত করেছিল, এই কাহিনিই নেটিজেনদের হৃদয় জয় করে নেয়। এই ধারণাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন অধিকাংশই। সেরার তকমাও দিয়েছেন তাঁকে।

আরও পড়তে পারেন:

ফের সংখ্যালঘু খুন কাশ্মীরে, মোদী-শাহের বিরুদ্ধে স্লোগান তুললেন পণ্ডিতরা

সক্রিয় রোগী আরও কমল ভারতে, মৃত্যু মাত্র ৯ জনের

বঞ্চনার অভিযোগ, ১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা চেয়ে ফের প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি মুখ্যমন্ত্রীর

ছত্তীসগঢ়ে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা, দুই পাইলটের মৃত্যু

শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী হলেন রনিল বিক্রমসিঙ্ঘে, দ্বীপরাষ্ট্রে অব্যাহত বিক্ষোভ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন