Narendra Modi and Urjit Patel
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর উর্জিত পটেল গত ৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। কয়েক দিন আগেই জানা গিয়েছিল, আগামী ১৯ নভেম্বর আরবিআইয়ের পরিচালনমণ্ডলী বৈঠকে বসতে চলেছে। তার আগেই কেন্দ্রের তরফে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের কাছে পেশ করা বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে। এরই মধ্যে মোদীর সঙ্গে পটেলের সাক্ষাৎ নতুন করে জল্পনা তৈরি করল।

কয়েক সপ্তাহ আগেই আরবিআইয়ের ডেপুটি গভর্নর বিরল আচার্য প্রকাশ্যে কেন্দ্রীয় সরকারের চাপের কথা জানান। তিনি বলেন, এ ভাবে চললে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের স্বাধীনতা ক্ষুন্ন হবে। বিরলের এমন মন্তব্যের পর অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি-সহ বিজেপির একাধিক নেতা আরবিআইয়ের নীতির দিকে আঙুল তুলতে শুরু করেন। এমনও শোনা যায়, আরবিআই অ্যাক্টের ৭ নম্বর ধারা অনুযায়ী ব্যাঙ্কের নীতি নির্ধারণে সরকার হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে।

কয়েক কদম এগিয়ে বিজেপির তরফে দাবি করা হয়, অসুবিধা হলে পটেল ইস্তফা দিচ্ছেন না কেন? এহেন মন্তব্যের পর বাস্তবিক ভাবেই পটেলের ইস্তফা নিয়ে গুঞ্জন তৈরি হয়। আবার এমনটাও শোনা যায়, পটেল যদি কেন্দ্রের দাবিগুলি মেনে নেন তা হলে আর তাঁর ইস্তফার প্রসঙ্গ ওঠে না।

এরই মধ্যে আশ্চর্যজনক ভাবে গত ৯ নভেম্বর অর্থমন্ত্রকের অর্থনৈতিক বিষয়ক সচিব সুভাষচন্দ্র গর্গ একটি টুইটার পোস্টে যাবতীয় অভিযোগকে ভিত্তিহীন এবং ভুয়ো বলে দাবি করেন। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক (আরবিআই)-এর সাম্প্রতিক সংঘাতের একটি বড়ো অভিযোগ ছিল উদ্বৃত্ত সঞ্চয়ে হস্তক্ষেপ। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী জানা যায়, আরবিআইয়ের তরফে এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তোলা হয়েছে। তবে সেই সংবাদকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করে আরবিআইয়ের কাছে সরকার কোনো ধরনের উদ্বৃত্ত সঞ্চয়ের আবেদন করেনি বলেই জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রকের ওই কর্তা।

একই ভাবে প্রকাশ্যে এল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পটেলের সাক্ষাতের বিষয়টিও। সেটিরও তারিখ ওই ৯ নভেম্বর। সূত্রের খবর, ছোটো ও মাঝারি শিল্পোদ্যোগীদের জন্য তহবিল জোগানের দাবিটি মেনে নিতে পারে আরবিআই। তবে অনাদায়ী ঋণের ব্যাপারে এখনও কোনো সমাধান সূত্রে বেরিয়ে আসেনি বলেই দাবি ওই সূত্রের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here