LinkedIn

ওয়েবডেস্ক: যাঁরা পেশাদার, তাঁরা যাতে পেশার সূত্রে পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে পারেন, তার জন্যই তৈরি হয়েছে লিঙ্কডইন। তা, সে দিক থেকে দেখলে যৌনব্যবসাও তো পেশার মধ্যেই পড়ে। তা-ও আবার সে পৃথিবীর আদিমতম পেশা। ফলে, যৌনকর্মীরা যদি লিঙ্কডইন-এ নিজেদের প্রোফাইল তৈরি করে থাকেন, তবে আশ্চর্য হওয়ার খুব একটা কিছু আছে কি? বিশেষ করে যখন অনলাইন এসকর্ট সার্ভিস প্রযুক্তির রমরমার এই যুগে বহু দিন হল নাম লিখিয়ে ফেলেছে পুরনো পন্থার খাতে!

অসুবিধাটা আসলে আইনত। ইউএস-ভিত্তিক এই সোশ্যাল মিডিয়া স্পষ্ট ভাবে লিখেই রেখেছে তাদের শর্তাবলীতে- এই প্ল্যাটফর্মকে দেহব্যবসার জন্য ব্যবহার করা যাবে না। অথচ সমীক্ষা এবং বাস্তব দুই-ই বলছে যে লিঙ্কডইন-এ দিন দিন যৌন পরিষেবা প্রদানকারী প্রোফাইলের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। দেশের মুম্বই, চেন্নাই, দিল্লি, কলকাতা, বেঙ্গালুরুর মতো সব বড়ো শহরেই এমন অনেক যৌন পরিষেবার প্রোফাইল রয়েছে যা লিঙ্কডইন মারফত খুঁজে বের করা যায়।

এই সমস্ত প্রোফাইলের বেশির ভাগই যদিও সরাসরি যৌনব্যবসার কথা উল্লেখ করে না। বেশির ভাগই প্রাথমিক ভাবে অফার দেয় বডি ম্যাসাজের। এবং সেই সূত্রে লিখে দিতে ভোলে না- এই ম্যাসাজ শেষ হবে এক মধুর পরিণতিতে। যাঁর যেমন ক্ষমতা, তিনি সেই মতো প্রতিশ্রুতি দেন। অনেক প্রোফাইল আবার প্রতিযোগিতায় আরও এক ধাপ এগিয়ে থাকতে সরাসরি সেবিকারা জন্মসূত্রে কোন অঞ্চলের, সুন্দরী শব্দ সহযোগে তা জানাতে ভোলেন না। এ সব ক্ষেত্রে পছন্দমতো সেবিকা বাছাই করে নেওয়ারও সুযোগ দেয় এই সব লিঙ্কডইন প্রোফাইল।

LinkedIn

আর যদি তা কোনো সংস্থাগত না হয়?

সে ক্ষেত্রে বিনোদনপ্রদানকারী, দুষ্টু গৃহবধূ, স্বাধীন পড়ুয়া- এ সব নানা পরিচিতি তুলে ধরে লিঙ্কডইন প্রোফাইলগুলো। সরাসরি জানিয়েও দেয়- ঠিক কত দক্ষিণার পরিবর্তে কতক্ষণ কতটুকু পরিষেবা পাওয়া যাবে। সঙ্গে সম্ভাব্য পরিষেবা-গ্রহণকারীকে উত্তেজিত করার জন্য কিছু খোলামেলা ছবিও থাকে।

এই জায়গা থেকেই প্রশ্ন ওঠে- যদি এমন ধাঁচের প্রফেশনাল প্রোফাইল তৈরি করা সংস্থার নিয়মবিরুদ্ধ হয়, তবে এত সব প্রোফাইল টিঁকে আছে কী করে?

এ নিয়ে যদিও লিঙ্কডইন কোনো সদর্থক উত্তর দিতে পারছে না। স্রেফ জানাচ্ছে- তারা প্রতিটি প্রোফাইলের উপরেই নজরদারি চালায়। আপত্তিকর কিছু দেখলে তা অবশ্যই ব্লক করে দেওয়া হবে। এবং যৌন পরিষেবা প্রদানকারী প্রোফাইল যাতে না থাকে, সে জন্য তারা ব্যবস্থা নেবে।

যদিও সংস্থার এই প্রতিশ্রুতিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে যৌনকর্মীদের এক প্রাক্তন তত্বাবধায়ক জানিয়েছেন, লিঙ্কডইন তো বটেই, পাশাপাশি অন্য সোশ্যাল মিডিয়াতেও এমন প্রোফাইল বাড়বে বই কমবে না। তা ক্রমাগত তৈরি এবং জনপ্রিয় হতেই থাকবে।

অন্য দিকে পুলিশের বক্তব্য, এ নিয়ে এখনও পর্যন্ত তাঁদের কাছে কোনো অভিযোগ আসেনি। তাঁরা নিয়মিত ভাবে পোস্টগুলির উপরে নজর রাখেন, কোনো সমস্যা দেখা দিলেই সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেবেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here