সংখ্যা কমলেও ভারতে দাঙ্গার তীব্রতা বেড়েছে: এনসিআরবি রিপোর্ট

0
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: ভারতে দাঙ্গার তীব্রতা ক্রমশ বেড়েছে বলে রিপোর্টে উল্লেখ করল ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি)। সংস্থার ২০১৭ সালের উপর প্রকাশ করা রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, ওই বছর দেশ প্রতিদিন গড়ে ১৬১টি দাঙ্গার মুখোমুখি হয়েছে, যেখানে দাঙ্গার শিকার হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা প্রতিদিন গড়ে ২৪৭ জন।

এনসিআরবি-র রিপোর্ট জানিয়েছে, গত ২০১৭ সালে দেশের দাঙ্গার শিকার হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা বেড়েছে ২২ শতাংশ, অন্য দিকে দাঙ্গার সংখ্যা কমেছে ৫ শতাংশ। অর্থাৎ, সংখ্যার দিক থেকে কমলেও দাঙ্গার তীব্রতা এ দেশে ক্রমবর্ধমান।

গত সোমবার প্রকাশিত এনসিআরবি-র রিপোর্ট বলছে, ২০১৭ সালে ভারত ৫৮,৮৮০টি দাঙ্গার ঘটনার সাক্ষী হয়েছে এবং দাঙ্গার শিকারের সংখ্যা ৯০,৯৯৪ জন। এর তুলনামূলক ভাবে এক বছর আগে দাঙ্গার সংখ্যা ছিল ৬১,৯৭৪ এবং শিকারের সংখ্যা ছিল ৭৩,৭৪৪ জন (অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ১৬৯টি দাঙ্গা এবং ২০২ জন ভুক্তভোগী)।

এখানে দাঙ্গা বলতে শুধুমাত্র সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষকেই বোঝায় না। এর মধ্যে জমি / সম্পত্তির বিরোধ, জাতিগত বিরোধ, রাজনৈতিক কারণে, সাম্প্রদায়িক সমস্যা, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ইত্যাদির কারণে সংঘটিত হওয়া সংঘর্ষও এই দাঙ্গার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

[ আরও পড়ুন: আলোর উৎসবের রংবাহারি প্রস্তুতি, দেখুন ফোটো গ্যালারিতে ]

এনসিআরবি-র রিপোর্ট অনুযায়ী, জমি ও সম্পত্তির বিরোধগুলিই ভারতে দাঙ্গা সংঘঠিত হওয়ার সব থেকে বড়ো কারণ ছিল। ২০১৭ সালেও জমি / সম্পত্তির বিরোধের কারণে দাঙ্গাগুলি সমস্ত দাঙ্গার ক্ষেত্রে ২২ শতাংশ এবং এই ক্ষেত্রে দাঙ্গার শিকার হওয়া ব্যক্তির হার ৩৫% ছিল।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.