rohingya problem in bangladesh

নয়াদিল্লি: গোয়েন্দাদের তরফ থেকে দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে, পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠনগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে কিছু রোহিঙ্গার। এমনই মত পোষণ করে রোহিঙ্গা বিতাড়নের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিল কেন্দ্র।

সোমবার সুপ্রিম কোর্টে জমা দেওয়া হলফনামায় কেন্দ্রের তরফ থেকে বলা হয়েছে, “রোহিঙ্গাদের বেআইনি অনুপ্রবেশের ফলে বিঘ্নিত হচ্ছে ভারতের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা।” হলফনামায় বলা হয়েছে, “হাওয়ালা চ্যানেলের মাধ্যমে টাকা আদায় করা, দেশবিরোধী কাজে যুক্ত হওয়া, ভারতের নকল পাসপোর্ট ধারণ করা এবং মানুষ পাচারের মতো কাজেও জড়িয়ে যাচ্ছে কিছু রোহিঙ্গা।” দিল্লি, হায়দরাবাদ, মেওয়ার এবং কাশ্মীরে কয়েক জন জঙ্গি রোহিঙ্গা সক্রিয় রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বেআইনি ভাবে ভারতের ঢোকানোর জন্য মায়ানমার, ত্রিপুরা এবং পশ্চিমবঙ্গে দালালচক্রও কাজ করেছে বলে আদালতে জানিয়েছে কেন্দ্র। হলফনামায় বলা হয়েছে, এ রাজ্যের হিলি এবং বেনাপোল সীমান্ত, ত্রিপুরার সোনামোড়া সীমান্তে দালালচক্র কাজ করছে। কলকাতা এবং গুয়াহাটিতেও দালালরা রয়েছে বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ১৪ আগস্ট কেন্দ্র ঘোষণা করে ভারতে বসবাসকারী ৪০,০০০ রোহিঙ্গাকে ‘পুশ ব্যাক’ অর্থাৎ নিজেদের দেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু বলেন, রাষ্ট্রপুঞ্জের শরণার্থী কমিশনে নথিভুক্ত রোহিঙ্গারাও বেআইনি অনুপ্রবেশকারী। ভারতের এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানায় রাষ্ট্রপুঞ্জ।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিতাড়নের ব্যাপারটি কেন্দ্রের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার এবং আদালত যেন এখানে নাক না গলায়। জমা দেওয়া হলফনামায় এই দাবিও করেছে কেন্দ্র। উল্লেখ্য, ভারতে বসবাসকারী দুই রোহিঙ্গা শরণার্থীর আবেদনের ভিত্তিতেই আদালতে এই শুনানি শুরু হয়েছে। আবেদনে বলা হয়েছে, ভারত যে ভাবে শরণার্থীদের বিতাড়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা আন্তর্জাতিক সনদের পরিপন্থী।

আগামী ৩ অক্টোবর এই মামলায় পরবর্তী শুনানির হবে সুপ্রিম কোর্টে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন