বিদিশা (মধ্যপ্রদেশ) : নভেম্বরের ৮ তারিখে বিমুদ্রাকরণ সংক্রান্ত ঘোষণার পরের দিনই নোবেলজয়ী কৈলাস সত্যর্থী বলেছিলেন, উচ্চ মানের নোট বাতিলের ফলে শিশু পাচার কমবে। কিন্তু দু’ মাস পরে সেই একই মানুষ এ ব্যাপারে হতাশ। তিনি তাঁর মনের কথা গোপন করেননি।

শিশুদের অধিকার নিয়ে সরব এই কর্মী বলেছেন, “মানব পাচারের যে র‍্যাকেট মূলত কালো টাকায় পরিচালিত হয়, আশা করেছিলাম বিমুদ্রাকরণের ফলে তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু এ ব্যাপারে তেমন কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। বিমুদ্রাকরণ একটা রাস্তা বটে, তবে পাচার বন্ধে এটাই শেষ কথা নয়।” কৈলাশ সত্যর্থী তাঁর ‘বচপন বচাও আন্দোলন’-এর মাধ্যমে শিশু শ্রম ও শিশু পাচারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, “মানবপাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো উপযুক্ত আইন দেশে নেই।

উল্লেখ্য, গত ২৭ ডিসেম্বর দেহরাদুনে এক নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, “বিমুদ্রাকরণের এক ঝটকায় দেশে সন্ত্রাসবাদ, মাদক মাফিয়ারাজ, মানবপাচার আর অন্ধকার জগৎ ধ্বংস হয়ে গিয়েছে।”

কিন্তু সত্যর্থীর অভিজ্ঞতা অন্য কথা বলে। তিনি বলেন, মানবপাচারের কাজে ধীরে ধীরে ২০০০ টাকার নোট লাগানো হচ্ছে। সরকারি সংস্থাগুলির উচিত, এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা। “কালো টাকা, দুর্নীতি আর মানবপাচার একটা দুষ্ট চক্র। শক্ত হাতে এর মোকাবিলা করা উচিত।” গার্হস্থ্য পরিচারক-পরিচারিকা নিয়োগের যে সব এজেন্সি অসম আর পশ্চিমবঙ্গে আছে সেগুলি অবিলম্বে বন্ধ করে দেওয়ার দাবি করেন সত্যর্থী।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন