ওয়েবডেস্ক: সবরীমালা ইস্যু নিয়ে সরব হয়েছে বিজেপি। হিন্দু ভাবাবেগে আঘাত দিচ্ছে শাসক বামেরা, এমন অভিযোগও করা হয়েছে। মনে করা হচ্ছিল এই ইস্যুকে ঘিরেই রাজ্যে ভোট ব্যাঙ্ক বাড়াবে বিজেপি। কিন্তু আদতে দেখা সে সব কিছুই হয়নি। রাজ্যে বিজেপির খারাপ প্রদর্শনই অব্যাহত থাকল।

সম্প্রতি কেরলের বিভিন্ন পুরসভায় মোট ৩৯টা ওয়ার্ডে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার সেই ভোটের ফলপ্রকাশ হয়েছে। দেখা গেল এর মধ্যে ২১টা ওয়ার্ডেই জয়ী হয়েছেন সিপিআইএম-সহ এলডিএফ প্রার্থীরা। ১২টা ওয়ার্ডে জয়ী হয়েছেন কংগ্রেস সমর্থিত ইউডিএফের প্রার্থীরা। বিজেপির ভাগ্যে গিয়েছে সাকুল্যে দু’টি ওয়ার্ড।

এটা ঠিক, স্থানীয় পুরসভার উপনির্বাচন কখনোই লোকসভা ভোটের সমকক্ষ নয়। কিন্তু এই নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে মানুষের মনোভাব বোঝা গেল।

এই ভোটের আগে দাবি করা হচ্ছিল, সবরীমালা ইস্যুকে ঘিরে প্রবল চাপে পড়া সিপিআইএম হয়তো বেশ কয়েকটি ওয়ার্ড হারাবে। আদতে দেখা গেল, সে রকম কিছু তো হয়ইনি, বরং ওয়ার্ড সংখ্যা আরও বাড়িয়েছে।

আরও পড়ুন বিপদ বাড়ালেন বোলাররা, দুর্ধর্ষ শতরানে ওপেনিং-এ জায়গা পাকা করলেন এই ব্যাটসম্যান

অন্য দিকে বিজেপির আশা ছিল ত্রিশুর শহরকে ঘিরে। সেই শহরের আগের বারের জয়ী ওয়ার্ডটাও এ বার হারিয়েছে গেরুয়া শিবির। সেই ওয়ার্ডে জিতেছেন বাম প্রার্থী।

শুধু তা-ই নয়, সবরীমালা যে জেলায় অবস্থিত, হিন্দু অধ্যুষিত সেই পথনমথিট্টা জেলার দু’টি পুরসভার দু’টি ওয়ার্ডে উপনির্বাচন হয়। সেই দু’টি ওয়ার্ডেই উল্লেখযোগ্য ভাবে তৃতীয় স্থানে শেষ করেছে বিজেপি। এই দু’টি ওয়ার্ডেই জিতেছে মুসলিম সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি। এই দলটির বিরুদ্ধে জঙ্গি সংগঠন সিমির যোগাযোগ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি।

সব মিলিয়ে ভোটের বিচারে দেখা যাবে, কংগ্রেস সমর্থিত ইউডিএফের আসন কমার ফায়দা তুলেছে সিপিআইএম সমর্থিত এলডিএফ। বিজেপির অবস্থান যা ছিল, তাই রয়েছে। কেরলে এখনও তাদের প্রভাব কমই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here