সাজ্জাদ লোন এবং বাকিদের সঙ্গে বৈঠকে রাম মাধব। (ফাইল ছবি)

শ্রীনগর: রাজনীতি কী বিষম বস্তু। মুখ্যমন্ত্রিত্বের টোপ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাকেও তাঁর অবস্থান থেকে সরিয়ে দিতে পারে। এমনই একটা জল্পনা শুরু হয়েছে কাশ্মীরের নতুন মুখ্যমন্ত্রী নিয়ে।

সূত্রের খবর, বিজেপির সমর্থনে কাশ্মীরে মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসতে পারেন প্রাক্তন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা সাজ্জাদ লোন। সাজ্জাদের বাবা আবদুল গনি লোনও বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা ছিলেন। ২০০২-এ আততায়ীয়ের গুলিতে মৃত্যু হয় তাঁর।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, গত কয়েক মাস ধরেই লোনের সঙ্গে বিজেপি নেতাদের সখ্যতা ক্রমশ বেড়েছে। গত জুনে কাশ্মীরে মেহবুবা সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে বিজেপি। তার পরেই কাশ্মীরে গিয়ে লোনের সঙ্গে দেখা করেন বিজেপির কাশ্মীরের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা রাম মাধব। এর পর বেশ কয়েক বার কাশ্মীর গিয়েছেন মাধব এবং প্রত্যেক বারই পিপল্‌স কনফারেন্সের নেতা লোনের সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি।

সম্প্রতি শ্রীনগর পুরসভার মেয়রের পদেও জিতেছে পিপল্‌স কনফারেন্স। তার পরেও লোনকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ফোন করেন মাধব।

আরও পড়ুন ‘সংখ্যালঘুদের প্রার্থী না করার নীতি নেওয়া হয়েছে,’ দল ছাড়লেন বিজেপির অন্যতম মুসলিম মুখ

কিন্তু ব্যাপার হল, বিজেপি এবং লোনের দল পিপল্‌স কনফারেন্সের সঙ্গে জোট যদি হয়ও তা হলেও এই জোট ক্ষমতা দখল করতে পারবে না। কারণ এই মুহূর্তে রাজ্যে বিজেপির বিধায়ক সংখ্যা ২৫। লোনের দলের বিধায়ক সংখ্যা ২। এর পাশাপাশি মেহবুবার পিডিপির বিদ্রোহীদের যদি জোটে শামিল করানো যায়ও তা হলেও ম্যাজিক ফিগার ৪৪-এ বিজেপি পৌঁছোতে পারবে না বলেই মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

সে ক্ষেত্রে সামনের বছর মার্চে কাশ্মীর বিধানসভার নির্বাচনের ডাক দিতে পারে বিজেপি এবং নির্বাচনের আগেই লোনের দলের সঙ্গে সমঝোতার ঘোষণা করে দিতে পারে বিজেপি। তখন লোনকেই মুখ্যমন্ত্রীর মুখ করে এগোবে বিজেপি।

বিচ্ছিন্নতাবাদী হয়ে কাশ্মীরের স্বাধীনতা দাবি করে রাজনীতিতে আসা লোনই এখন এই রাজ্যে বিজেপির প্রধান মুখ হতে চলেছেন! রাজনৈতিক বৃত্ত সম্পূর্ণ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here