তামিলনাড়ু : এআইএডিএমকের শীর্ষনেতা হওয়া উচিত শশীকলার – দলের প্রবীণ সদস্যরা এমনটাই মনে করছেন। তাঁদের বক্তব্য, তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জে জয়ললিতার সব থেকে কাছের সহযোগী ছিলেন তিরুমতি শশীকলা। তাই এখন দলের প্রধান হিসেবে থাকা উচিত তাঁরই।

শনিবার এআইএডিএমকে দলের তরফে টুইট করা বলা হয়, দলের কিছু কর্মকর্তা মনে করেন পুরাতচি থালাইভি আম্মা যে পথ দেখিয়েছেন, সেই পথে দলকে চালিত করা উচিত শশীকলারই।

 

সরকারি ভাবে অবশ্য দলের তরফে বলা হয়েছ, জয়ললিতার জায়গায় কে দলের সাধারণ সম্পাদক হবেন তা ঠিক করতে শীঘ্রই নির্বাচন হবে। এবং এ নিয়ে দলের মধ্যে কোনো বিরোধ নেই। জয়ললিতার উত্তরাধিকারী হওয়ার দৌড়ে যে শশীকলা এগিয়ে আছেন তাতে কোনো সংশয় নেই।

শশীকলার হয়ে পরোক্ষ ভাবে ব্যাট ধরেছেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সি পন্নাইয়ান। মুখ্যমন্ত্রী পনিরসেলভম-সহ বিভিন্ন মন্ত্রীর বারে বারে শশীকলার কাছে ছুটে যাওয়ার ব্যাপারটিকে সমর্থন করে পন্নাইয়ানের মন্তব্য, যদি দলের কোনো সদস্য শশীকলা আম্মার সঙ্গে দেখা করতে আসেন তা হলে তাতে কী ভুল আছে? শশীকলা আম্মা দলের এক জন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। দলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পন্নাইয়ান নিজে শশীকলার সঙ্গে একটি বৈঠক করেন। 

পন্নাইয়ান আরও বলেন, রাজ্যের সরকার চালাচ্ছেন ও পনিরসেলভম, আর দল চলবে দলের মনোনীত ব্যক্তির দ্বারা। দলের একটা সংগঠন আছে। রয়েছে সাধারণ সমিতি, কার্যনির্বাহী সমিতি, বিভিন্ন ক্ষেত্রে কর্মকর্তারা রয়েছেন আর শশীকলাও এক জন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।  

তবে জয়ললিতার সমর্থক আর এআইএডিএমকে সদস্যদের মধ্যে অনেকেই শশীকলাকে মেনে নিতে চাইছেন না। তাঁদের বক্তব্য, জয়ললিতা হাসপাতালে থাকাকালীন শশীকলা তাঁদের দেখা করতে দেননি। এই অভিযোগ তুলে তাঁরা শশিকলার বিরোধিতা করছেন। যদিও দলের অন্যতম সদস্য সি পন্নাইয়ান এই বক্তব্যের বিরোধিতা করে বলেছেন, সবটাই গুজব, যার দ্বারা মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here