জিএসটি-র আওতার বাইরে থেকে যাওয়া করের মাশুল গুনবে কারা

0
504

ওয়েবডেস্ক: দেশ জুড়ে পয়লা জুলাই চালু হল পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি)। আর তার পর থেকেই অনির্দিষ্ট কালের জন্য হরতাল ডাকলেন তামিলনাড়ুর প্রেক্ষাগৃহের মালিকরা? অভিযোগ একটাই। বিনোদন কর বাবদ দু’বার টাকা কাটা হচ্ছে তাঁদের থেকে। অথচ বিনোদন কর তো একটাই, যা কিনা পড়ছে জিএসটি-র আওতায়। তা হলে সমস্যাটা কোথায়?

আসল ব্যাপারটা হল, জিএসটিতে আলাদা করে ধার্য করা হয়েছে বিনোদন কর। দেশ জুড়ে তার পরিমাণ এক। এর পর বিভিন্ন রাজ্য সরকার আবার বাড়তি বিনোদন কর ধার্য করছে। অর্থাৎ বিনোদনের জন্য আলাদা ভাবে দু’বার কর দিতে হচ্ছে প্রেক্ষাগৃহের মালিকদের। এবং সেই বাড়তি বিনোদন করের ওপর কোনো ঊর্ধ্বসীমাও বেঁধে দেয়নি কেন্দ্র। তামিলনাড়ুতে কেন্দ্রের বেঁধে দেওয়া ২৮% (১০০ টাকার কম সিনেমার টিকিটের ক্ষেত্রে ১৮%) বিনোদন করের পরেও বাড়তি কর হিসেবে দিতে হচ্ছে ৩০%।

বাড়তি বিনোদন করের মতো আরও বেশ কিছু করকে জিএসটিভুক্ত করা হয়নি। স্ট্যাম্প ডিউটি, ইলেক্ট্রিসিটি সেজ, সম্পত্তি কর, তামাকজাত দ্রব্যের ওপর বাড়তি এক্সাইজ ডিউটি, টোল ট্যাক্স, রোড ট্যাক্স ইত্যাদি কিন্তু পণ্য পরিষেবা করের আওতায় পড়ছে না। এগুলোর ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার ইচ্ছেমতো কর বসাতে পারবে।

আপাতদৃষ্টিতে আমার আপনার মনে হতে পারে টিভি দেখার খরচ বেশ খানিকটা কমবে জিএসটি চালু হওয়ার পর থেকে। ডিটিএইচ এবং কেবল পরিষেবার ওপর এর আগে ২৫-৪৫% কর নেওয়া হত। পয়লা জুলাই থেকে তা কমে হয়েছে ১৮%। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও রাজ্য সরকার বাড়তি কর না বসালে তবেই কম খরচে টিভি দেখা সম্ভব। মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, গুজরাত, তামিলনাড়ু, রাজস্থান ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে বিনোদন কর হিসেবে জিএসটি-র পরেও আলাদা করে কর বসাবে তারা।

নির্মীয়মাণ সম্পত্তি পড়বে পণ্য ও পরিষেবা করের আওতায়। কিন্তু তৈরি হয়ে গেলে তার ওপর যখন স্ট্যাম্প ডিউটি বসবে, তা কিন্তু জিএসটিভুক্ত হবে না। অতএব বোঝাই যাচ্ছে ‘এক কর এক জাতি’-র স্বপ্ন কিন্তু অধরাই থাকছে আপাতত। বরং বেশ কিছু পরোক্ষ করের ক্ষেত্রে একই কারণে একাধিক বার কর দিতে হলে জটিলতা বাড়বে।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here