শরদ পাওয়ারের হস্তক্ষেপে ইউপিএর দিকে ঝুঁকছে বিজেপি ঘেঁষা দুই দল?

0

ওয়েবডেস্ক: এক্সিট পোলগুলো যতই বিজেপি তথা এনডিএর দিকে পাল্লা ভারী বলুক, সেই এক্সিট পোলগুলিকে ভুয়ো বলছে বিরোধীরা। আর তাই শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বিরোধীদের ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টায় কোনো কসুর করছেন না ইউপিএর শরিক দুই নেতা। গত কয়েক দিন ধরে ভারতের বিভিন্ন প্রান্ত চষে বেড়িয়েছেন চন্দ্রবাবু নাইড়ু। এ বার সেই ভূমিকা পালন করছেন শরদ পাওয়ার। তবে তিনি কোথাও ঘুরছেন না। তাঁর ভরসা ফোন। আর সূত্রের খবর, তাঁর ফোনের দৌলতে বিজেপি ঘেঁষা দু’টি দল এখন ইউপিএর দিকে ঝোঁকার ইঙ্গিত দিয়েছেন।

ইউপিএ জোট এবং এনডিএ জোট ছাড়াও ‘অন্যান্য’ বলে একটা ব্যাপার রয়েছে। এই তালিকায় রয়েছেন কংগ্রেস এবং বিজেপির থেকে সমদূরত্ব বজার রাখা দলগুলি। এরই মধ্যে এমন তিনটে দল রয়েছে, ঐতিহাসিক ভাবে যাদের বিজেপির প্রতি ঝোঁকটাই বেশি ছিল। তারা তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের টিআরএস, ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের বিজেডি এবং অন্ধ্রের জগন্মোহন রেড্ডির ওয়াইএসআর কংগ্রেস। এর মধ্যে টিআরএস এবং বিজেডিকে ইউপিএতে শামিল করার ব্যাপারে শরদ পাওয়ার অনেকটাই রাজি করিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা বলয়, জেনে নিন শহরে কোথায় কোথায় হবে ভোটগণনা

উল্লেখ্য, ওড়িশায় এখন বিজেডির প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপি। এই পরিস্থিতিতে নবীন পট্টনায়কের পক্ষে এনডিএতে শামিল হওয়াটা চাপের বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। শাসক এবং বিরোধী দুই দল এক জোটে থাকবে, এটা হওয়ার সম্ভাবনা কম। তাই সূত্রের খবর, দরকারে ইউপিএতে আসার জন্য পাওয়ারকে ফোনে আশ্বস্ত করেছেন নবীন। যদিও নবীন মুখে বলছেন, ফণী-বিধ্বস্ত ওড়িশাকে পুনরুদ্ধারের জন্য যে দল আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করবে, তার জোটকেই সমর্থন করবে বিজেডি।

অন্য দিকে চন্দ্রশেখর রাওকেও একটি টোপ পাওয়ার দিয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। ইউপিএতে এলে এবং ইউপিএর সরকার তৈরি হলে প্রয়োজনে উপপ্রধানমন্ত্রীর পদটা তাঁকে দেওয়া হতে পারে এমনই নাকি ইঙ্গিত দিয়েছেন পাওয়ার। যদিও এ সব জল্পনার কোনো ভিত্তিই থাকবে না, যদি এক্সিট পোলের সঙ্গেই মিলে যায় প্রকৃত ফলাফল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here