Sitaram Yechury

নয়াদিল্লি: গত কয়েক দিন ধরেই সিবিআই ডিরেক্টর অলোক ভার্মা এবং ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্তানার মধ্যে ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছিল। দেশের সর্বোচ্চ তদন্তকারী সংস্থার সর্বোচ্চ পদাধিকারী দুই কর্তার এহেন বিবাদ গড়িয়েছে দিল্লি হাই কোর্টে । এরই মধ্যে সিবিআইয়ে শাসক দলের ভূমিকাকে নগ্ন করে দিয়ে সেই বিবাদে হস্তক্ষেপ পর্যন্ত করেছেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী। এরই মধ্যে বিরোধী দলগুলিও সরব হয়েছে নিজের সুরে। তবে সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি সিবিআইয়ের দুই কর্তার ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব এবং তাতে শাসক দল বিজেপির পাশাপাশি সহযোগী সংগঠন আরএসএসের ভূমিকা নিয়েও সরব হলেন।

ইয়েচুরি বলেন, “দেশের প্রতিষ্ঠানগুলির ইতিহাস এবং ঐতিহ্যের ধ্বংসলীলায় মেতেছে বিজেপি। তারা চাইছে, ওই প্রতিষ্ঠানগুলির ক্ষমতা খর্ব করে সেগুলিকে ধ্বংসের মুখে নিয়ে যেতে। উল্টো দিকে আরএসএসের অসাংবিধানিক অ্যাজেন্ডাগুলিকে আরও বেশি করে প্রসারিত করতে। তাদের সম্মিলিত পৈশাচিক নীতিকে জনগণ প্রতিহিত করবে”।

সিবিআই কর্তাদের এই কাদা ছোড়াছুড়িকে কেন্দ্র করে বিজেপির কর্তৃত্বের প্রতিফলনের কারণ হিসাবে ইয়েচুরি বলেন, “সিবিআইয়ের অভ্যন্তরে এই ধরনের ঘটনা থেকে আমরা মোটেই অবাক হচ্ছি না। সব থেকে বড়ো কথা, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের বিরুদ্ধে একটি গুরুতর অভিযোগের তদন্ত করছিল সিবিআই। কিন্তু তাঁর নাম সেখান থেকে মুছে গেল ঠিক কী কারণে, তার জবাব পেতে কোনো পুরস্কার ঘোষণা করার দরকার নেই”।

অনুব্রত-অনুগামীর নৃশংস মৃত্যুর পর অপসারিত ওসি

ইয়েচুরির দাবি, গত চার বছরে ‘সমঝোতাকারী আধিকারিক’রা এই সর্বোচ্চ তদন্তকারী সংস্থার শীর্ষপদে ঠাঁই করে নিয়েছেন। এটা শুধু অপশাসনেরই নিদর্শন নয়, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে দমিয়ে রাখতে আর নিজেদের দুর্নীতি চাপা দিতেই এই ধরনের অভিপ্রায়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here