শ্রীনগর: মেহবুবা মুফতি সরকার তাঁর রাজ্যে সোশ্যাল মিডিয়া নিষিদ্ধ করে দেওয়ার সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রাখতে অ্যাপ তৈরি করে ফেলল ১৬ বছরের জেয়ান শফিক।

দশম শ্রেণি পাশ করা জেয়ান তার ১৯ বছর বয়সি বন্ধু উজেইর জানকে সঙ্গে নিয়ে ২০১৩ সালে ‘কাশবুক’ নামে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে। গত ২৬ এপ্রিল জম্মু-কাশ্মীরে সোশ্যাল মিডিয়া নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ার পর জিয়ান ও জান ঠিক করে, এক সপ্তাহ পরে ২ মে তারা ওয়েবসাইটটিকে অ্যাপ হিসাবে ফের ‘লঞ্চ’ করবে।

নামেই বোঝা যায় কাশ্মীরের গন্ধ আছে জেয়ান-জানের ওয়েবসাইটে। অ্যাপ হিসাবে নামার এক সপ্তাহের মধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়েছে ‘কাশবুক’। হাজারেরও বেশি লোক তাদের ওয়েবসাইটে ‘সাইন আপ’ করেছেন। ‘কাশবুক’-এর বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যে তাঁরা খুশি। এই ওয়েবসাইটের একটা নজরকাড়া দিক হল, এতে কাশ্মীরি ভাষাতেও যোগাযোগ করা যায়।

জেয়ানের বয়স তখন মাত্র ১১, যখন সে নিজে নিজেই ‘এইচটিএমএল’ শেখা শুরু করে। পরে সে সি ++ এবং জাভাও শেখে। “সরকার সমস্ত সোশ্যাল নেটওয়ার্ক বন্ধ করে দিয়েছে। এমনকি ভিপিএনগুলোও (ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক) ব্লক করে দিয়েছে। সরকার যখন সোশ্যাল মিডিয়াতে ঢুকতেই দিচ্ছে না, তখন উপত্যকার মানুষজন কী ভাবে নিজেদের মধ্যে যুক্ত থাকবেন? সোশ্যাল মিডিয়াকে নিষিদ্ধ করার জবাব হল কাশবুক” – মন্তব্য জেয়ানের।

জম্মু-কাশ্মীর সরকার সোশ্যাল মিডিয়া নিষিদ্ধ করে দেওয়ার পরে বহু মানুষ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নিষিদ্ধ সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইটগুলোতে ঢোকার জন্য ভিপিএন ব্যবহার করতে শুরু করেছিল। জেয়ান বলে, তারা তাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন কাশ্মীরি পণ্য ও পরিষেবা নিয়ে প্রচার করবে। “তা ছাড়া বহু তরুণ মানুষ এই উদ্যোগ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবে, এটাকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে নেবে এবং অনেক নতুন জিনিস তৈরি করতে পারবে যা কাশ্মীর এবং কাশ্মীরিদের ভালোর জন্য ব্যবহার করা যাবে” – বলে জেয়ান।

উল্লেখ্য, গত ২৫ এপ্রিল রাজ্য সরকার এক নির্দেশ জারি করে রাজ্যে সব সোশ্যাল মিডিয়া এক মাসের জন্য নিষিদ্ধ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে, ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ, গুগল+, কিউকিউ, উইচ্যাট, ওজোন, টাম্বলার, বাইদু, স্কাইপে, ভাইবার, লাইন, স্ন্যাপচ্যাট, পিন্টারেস্ট, টেলিগ্রাম এবং রেডিট।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here