কৃষিঋণ মকুবে আগ্রহী রাজ্যগুলিকে নিজেদের সম্পদ থেকে টাকা জোগাড় করতে হবে, সতর্ক করলেন জেটলি

0
372
arun jaitley corporate tax

নয়াদিল্লি: কৃষিঋণ মকুবের জন্য দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে কৃষকদের বিক্ষোভ চলছে। এমনই এক বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে মধ্যপ্রদেশে নিহত হয়েছে পাঁচ জন কৃষক। কৃষকদের এই বিক্ষোভের মুখে কৃষিঋণ মকুবের ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা শুরু করেছে কিছু রাজ্য। তবে যে সব রাজ্য কৃষিঋণ মকুব করবে, তাদের টাকা জোগাড় করতে হবে নিজেদের সম্পদ থেকেই, রাজ্যগুলিকে এমনই সতর্ক করলেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। অর্থাৎ ঠারেঠোরে তিনি বুঝিয়ে দিলেন কৃষিঋণ মকুবের ব্যাপারে দায়িত্ব রাজ্যগুলিকেই নিতে হবে।

সোমবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, “আমি আগেও আমার অবস্থান স্পষ্ট করেছি। যে সব রাজ্য কৃষিঋণ মকুবের পথে হাঁটছে, তাদের নিজেদের টাকা, নিজেদের সম্পদ থেকেই জোগাড় করতে হবে। এর থেকে বেশি আমার কিছু বলার নেই।” প্রসঙ্গত, কৃষিঋণ মকুবে রাজ্যগুলিকে কেন্দ্র সাহায্য করবে কি না, সেই প্রশ্নের উত্তরেই এই মন্তব্য করেন জেটলি।

অর্থাৎ নিজের দল শাসিত রাজ্যগুলিই অর্থমন্ত্রীর সতর্কতার মুখে পড়েছে। জেটলি আরও বলেন, “মহারাষ্ট্রের মতো আরও কিছু রাজ্য কৃষিঋণ মকুবে উদগ্রীব। তাদের নিজেদের সম্পদ কাজে লাগিয়েই টাকা জোগাড় করতে হবে।” মহারাষ্ট্র ছাড়াও কৃষিঋণ মকুবের পথে হাঁটতে চলেছে দু’টি রাজ্য মধ্যপ্রদেশ এবং উত্তরপ্রদেশ।

এ মাসের ১ তারিখ থেকে কৃষিঋণ মকুবের দাবিতে বিক্ষোভে শামিল হয়েছে মহারাষ্ট্রের অধিকাংশ জেলার কৃষক। সেই বিক্ষোভে হিংসাত্মক ঘটনার পাশাপাশি বনধ-অবরোধও হয়। এর ফলে বাজারে সবজির আকাল দেখা দেয়। এই বিক্ষোভের প্রভাবেই রবিবার কৃষিঋণ মকুবের কথা ঘোষণা করেছে দেবেন্দ্র ফড়নবীশ সরকার।

মধ্যপ্রদেশেও কৃষকদের সুবিধার্থে একাধিক প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংহ চৌহান। তবে কৃষিঋণ মকুবের ব্যাপারে খোলসা করে কিছু বলেননি তিনি। অন্য দিকে রাজ্যে কৃষিঋণ মকুবের ব্যাপারে আলোচনার জন্য সোমবার নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

 

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here