Lois Sofia

ওয়েবডেস্ক: তাঁর প্রথম ‘অপরাধ’ তিনি কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে ‘ফ্যাসিস্ট’ বলেছিলেন। বলেছিলেন, ‘ফ্যাসিস্ট বিজেপি সরকার নিপাত যাক’। দ্বিতীয় ‘অপরাধ’ তিনি এ কথা বলেছিলেন যে সে লোকের সামনে নয়, একেবারে খোদ তামিলনাড়ু বিজেপি সভানেত্রী তামিলিসাই সৌন্দররাজনের সামনে। আর তৃতীয় ‘অপরাধ’ তিনি একটি উড়ানে এই স্লোগান তুলেছিলেন। ব্যাস, আর যায় কোথায়! এত বড়ো ‘অপরাধ’। তাঁর কি শ্রীঘর ছাড়া অন্য কোথাও ঠাঁই হতে পারে। চলে এল পুলিশ। গ্রেফতার করে নিয়ে গেল সেই ছাত্রীকে। অবশ্য, মঙ্গলবার আদালতে তাঁর জামিন মঞ্জুর হয়।

তামিলিসাই সৌন্দররাজন মনে করেন, কোনো নিরীহ ব্যক্তি ‘ফ্যাসিস্ট’ শব্দটি উচ্চারণ করতে পারেন না। এবং এখানেই শেষ নয় তামিলিসাই ওই ছাত্রীকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ তকমাও দিয়ে দিয়েছেন।

ডিএমকে প্রধান এম কে স্ট্যালিন ওই ছাত্রীর মুক্তি দাবি করে বলেছেন, এ ভাবে সরকার ক’ জনকে গ্রেফতার করবে?

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার তামিলনাড়ুতে। একটি উড়ানে। ওই উড়ানে সোফিয়া লয়েস নামে এক ছাত্রী কেন্দ্রের মোদী সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন। সেই উড়ানেই ছিলেন তামিলিসাই। দু’ জনের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। সেই ঝগড়া গড়ায় তুতিকোরিন বিমানবন্দরের লাউঞ্জ পর্যন্ত। এই ঝগড়া ধরা পড়ে ক্যামেরায়।

ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে, ওই ছাত্রী এবং লাউঞ্জে থাকা অন্য যাত্রীদের তামিলিসাই বলছেন, “কোনো উড়ানে স্লোগান তোলা যায় না। কোনো উড়ান প্রকাশ্য সভামঞ্চ নয়। ও যখন আমার সামনে এসে ‘ফ্যাসিস্ট বিজেপি সরকার নিপাত যাক’ বলছে, তখন আমি কী ভাবে চুপ করে থাকব? এটাই কি মত প্রকাশের স্বাধীনতা নাকি?”

আরও পড়ুন সমাজকর্মী গ্রেফতারে পুলিশকে তুলোধোনা বম্বে হাইকোর্টের

সোফিয়া কানাডার মন্ট্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। তামিলনাড়ুতে এসেছেন তাঁর নিজের বাড়িতে। পরে তামিলিসাই সাংবাদিকদের বলেন, “ওই ছাত্রী যে ভাবে আমার সামনে স্লোগান দিচ্ছিল তাতে মনে হচ্ছিল আমার জীবন বিপন্ন হতে পারে।” তিনি বলেন, লাউঞ্জে যখন তাকে ওই কথা বলেছিলাম, তখন সে বলেছিল এটা নাকি তার মত প্রকাশের স্বাধীনতার মধ্যে পড়ে।

বিজেপি নেতা পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। এবং এই ঘটনার পিছনে কোনো গোষ্ঠী জড়িত কিনা তা-ও খতিয়ে দেখতে বলেন। তাঁর কথায়, “সে যে সব কথা বলছিল, তা কোনো সাধারণ মানুষের কাছ থেকে আশা করা যায় না।”

তামিলনাড়ুর তৎপর পুলিশ অভিযোগ পেয়েই সোফিয়াকে আটক করে। তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯০, ৫০৫ ধারা এবং তামিলনাড়ু সিটি পুলিশ আইনের ৭৫(১) ধারা অনুসারে এফআইআর দায়ের করা হয়। আদালত সোফিয়াকে ১৫ দিনের জন্য বিচারবিভাগীয় হেফাজতে পাঠিয়েছে। সোফিয়ার বাবাও অবশ্য তাঁর মেয়েকে গালিগালাজ করার অভিযোগে তামিলিসাই এবং বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে অল উইমেন পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

আরও পড়ুন ‘প্রেসার কুকারে বিস্ফোরণ হবে, যদি…’ সমাজকর্মী গ্রেফতারে মন্তব্য প্রধান বিচারপতির

তামিলিসাই দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেছেন, সোফিয়া লয়েস এক জন সন্ত্রাসবাদী। তিনি বলেন, “যে মানুষটা ফ্যাসিস্ট শব্দটি ব্যবহার করছে সে কখনোই নিরীহ হতে পারে না। কোনো নিরীহ মেয়ে এই শব্দ ব্যবহার করতে পারে না।ও বলেছিল ওর মত প্রকাশের অধিকার আছে। ও চিৎকার করছিল, বলছিল ‘ফ্যাসিস্ট’। আমার মনে হয়েছে এক জন সন্ত্রাসবাদীকে উপেক্ষা করা যায় না। তাই অভিযোগ দায়ের করি।”

ইতিমধ্যে টুইট করে ডিএমকে-র সভাপতি এম কে স্ট্যালিন বলেছেন, তিনিও তো বলেন ফ্যাসিস্ট বিজেপি সরকার নিপাত যাক। এ ভাবে ক’ জনকে গ্রেফতার করবে পুলিশ? অবিলম্বে ওই ছাত্রীর মুক্তির দাবি করেন স্ট্যালিন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন