চণ্ডীগড়: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে অভিনব কায়দায় প্রতিবাদ করলেন কয়েকজন পড়ুয়া। সভাস্থলের পাশেই স্নাতকের পোশাকে পকোড়া বেচলেন তাঁরা। এই ঘটনার জেরে অবশ্য ১২জনকে আটক করা হয়। পরে, নির্বাচনী প্রচার শেষ হয়ে গেলে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার চণ্ডীগড়ে দলীয় প্রার্থী তথা অভিনেত্রী কিরণ খেরের প্রচারে নির্বাচনী সভা করতে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাঁর সমাবেশের আগে সভাস্থলের পাশেই স্নাতকের সমাবর্তনের কালো পোশাক পরে পকোড়া ভেজে বিক্রি করা শুরু করেন পড়ুয়ারা। এক প্রতিবাদী ছাত্রী বলেন, “মোদীর সভায় আমরা পকোড়া বেচতে চাই, যাতে তিনি বুঝতে পারেন যে একজন শিক্ষিত যুবার জন্য পকোড়া বিক্রি করাটা কতটা মহান কাজ।” এর পাশাপাশি, এক ছাত্রকেও চেঁচিয়ে বলতে শোনা যায়, “ইঞ্জিনিয়ারদের তৈরি পকোড়া খেয়ে যান, বিএ ও এলএলবি পকোড়া বিক্রি হচ্ছে।”

উল্লেখ্য, গত বছর একটি সাক্ষাৎ‌কারে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, “যাঁরা পকোড়া বিক্রি করে দিনে ২০০ টাকা আয় করছেন, তাঁদের বেকার বলা যায় না।” মোদীর এই মন্তব্যের পর বিভিন্ন মহলে শুরু হয়ে যায় প্রতিবাদ। তাঁর বিরুদ্ধে তোপ দাগে বিরোধীরাও।

এ বার নির্বাচনে অন্যতম ইস্যু দেশে ক্রমে বাড়তে থাকা বেকারত্ব। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও সাফ জানিয়ে দেন বেকারত্বের ইস্যুতেই এ বার নির্বাচনে লড়াই হবে। কারণ দেশে চাকরির ছবিটা খুবই খারাপ। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি রিপোর্টে দেখা গিয়েছে দেশে বেকারত্বের হার বেড়েছে ৬.১ শতাংশ।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here