নয়াদিল্লি: ইউক্রেন-ফেরত ডাক্তারি পড়ুয়াদের ভারতের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতি হয়ে পাঠ শেষ করার সুযোগ মেলার সম্ভাবনা আপাতত নেই। কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, আইন অনুযায়ী, এমন কোনো সংস্থান তাদের হাতে নেই।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি, রাশিয়ার হামলার প্রেক্ষিতে ইউক্রেনে যুদ্ধ বেধে যায়। তার জেরে ইউক্রেনে কোর্স অসমাপ্ত রেখেই দেশে ফিরে আসতে হয় হাজার হাজার পড়ুয়াকে। তাঁদের মধ্যে বেশির ভাগই ডাক্তারি পড়ুয়া। পাঠ মাঝপথে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাঁরা ভবিষ্যৎ নিয়ে ব্যাপক দোলাচলে পড়েন।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁদের বাংলার বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে নেওয়ার আশ্বাস দেন। তবে সে জন্য প্রয়োজন কেন্দ্রের ছাড়পত্রের। কিন্তু শেষ খবর অনুযায়ী, তেমন কোনো সংস্থান কেন্দ্রের হাতে নেই বলে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি রাজ্যসভার সাংসদ বিনয় বিশ্বমের করা একটি প্রশ্নের জবীবে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ভারতী পওয়ার জানান, যুদ্ধের কারণে প্রায় ২০ হাজার পড়ুয়া ইউক্রেন থেকে ভারতে ফিরে এসেছেন। তিনি আরও জানান, ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল কাউন্সিল অ্যাক্ট, ১৯৫৬ এবং ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন অ্যাক্ট, ২০১৯-এ বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের ভারতের মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ভরতি করিয়ে নেওয়ার কোনো সংস্থান নেই।

অর্থাৎ, যুদ্ধের কারণে পড়া থামিয়ে দেশে ফিরে আসা পড়ুয়াদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আশঙ্কা কাটছে না। যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে যে হেতু তাঁদের পড়া ছেড়ে ফিরে আসতে হয়েছে, তাই এ দেশের মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ভর্তি হওয়ার জন্য এককালীন একটি সুবিধা দেওয়া হোক, এই দাবিতে রাজধানী দিল্লিতে ৫ দিনের অনশন কর্মসূচিও পালন করেছেন পড়ুয়ারা।

আরও পড়তে পারেন

সংসদ চত্বরে পঞ্চাশ ঘণ্টার অবস্থান শুরু করলেন সাসপেন্ডেড সাংসদরা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন