২০১৬ সালে কৃষকের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি আত্মহত্যা করেছে দিনমজুর

0

ওয়েবডেস্ক: ২০১৬ সালে ২৫,১৬৪ জন দিনমজুর আত্মহত্যা করেছে। ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর (এনসিআরবি) তথ্য বলছে, অন্যান্য পেশায় যুক্ত থাকা মানুষের আত্মহত্যার সংখ্যার তুলনায় দিনমজুরের আত্মহত্যার সংখ্যা অনেক গুণ বেশি।

২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে দিনমজুর আত্মহত্যার ঘটনা বেড়েছে ৫.৭ শতাংশ। সে বছরে ২৩,৭৯৯ জন দিনমজুর আত্মহত্যা করেছিলেন।

সাধারণত কৃষক আত্মহত্যার তথ্য নিয়েই সরব হয় রাজনৈতিক দলগুলি। কিন্তু তথ্য বলছে, ২০১৬ সালে কৃষকের আত্মহত্যার তুলনায় দ্বিগণেরও বেশি আত্মহত্যা করেছে দিনমজুর। ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী ওই বছর ১১,৩৭৯ জন কৃষকক এবং ক্ষেতমজুর আত্মহত্যা করেছে।

এই তথ্য বলে দিচ্ছে, অর্থনৈতিক ব্যবস্থার একেবারে তলানিতে পড়ে রয়েছে দিনমজুররা। বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা প্রকল্প থাকলেও সেগুলির সুবিধা আদৌ কি পৌঁছচ্ছে সেই মানুষগুলোর কাছে, প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে এনসিআরবি-র তথ্য।

আরও পড়ুন: সপ্তাহান্তে বঙ্গোপসাগরে নতুন নিম্নচাপ

কেন আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন দিনমজুররা? জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনফরমাল সেক্টর অ্যান্ড লেবার স্টাডিস বিভাগের অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর অনমিত্র রায় চৌধুরী লাইভমিন্টকে জানিয়েছেন, ‘‘২০১৪ এবং ২০১৫ সালে খরা হওয়ার ফলে অকৃষি ক্ষেত্রে শ্রমিকের সংখ্যা বেড়ে যায়। এর প্রভাব পড়ে মজুরি এবং কাজের লভ্যতার উপর।’’

হিসাবে উঠে আসছে আরও একটি কারণ – রাজ্য সরকারগুলি কৃষক-আত্মহত্যার সংখ্যা নিয়ে রাজনৈতিক হইচই কমানোর জন্য কৃষিক্ষেত্রে আত্মহত্যাকে দিনমজুর আত্মহত্যার সংখ্যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করে দেয়। ফলে দিনমজুরের আত্মহত্যার সংখ্যা বাড়ছে বলে মনে করা হচ্ছে।

এনসিআরবি রেকর্ড অনুযায়ী, পশ্চিমবঙ্গ, বিহার এবং হরিয়ানা সহ ন’টি রাজ্যে ২০১৬ সালে কোনো কৃষক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেনি।

২০১৪ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে দিনমজুর আত্মহত্যার সংখ্যা ১৫,৭৩৫ থেকে বেড়ে হয়েছে ২৫,১৬৪।  শতাংশের হিসাবে ৬০ শংতাশ বেড়েছে। ২০১৪ সাল থেকে দিনমজুর আত্মহত্যার হিসাবকে আলাদা করে কেন্দ্র। ক্ষেতমজুরকে এই তালিকার বাইরে রাখা হয়।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.