দিল্লির দূষণ ঠেকাতে লকডাউনের নিদান দিল সুপ্রিম কোর্ট

0

নয়াদিল্লি: দূষণে ভয়াবহ পরিস্থিতি হয়েছে দিল্লির। সেই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে এ বার রাজধানীতে লকডাউনের নিদান দিল শীর্ষ আদালত।

শনিবার দিল্লিতে বায়ু দূষণ সংক্রান্ত একটি মামলায় শুনানিতে লকডাউনের বিকল্পের কথা উঠে আসে। প্রধান বিচারপতি এনভি রমণা কেন্দ্রের কৌঁসুলিকে বলেন, ‘‘পরিস্থিতি ক্রমশ গুরুতর হচ্ছে। আপনারা কী ভাবে মোকাবিলার কথা ভাবছেন? দু’দিনের জন্য লকডাউন করবেন?’’ দূষণ মোকাবিলায় আপৎকালীন ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন তিনি।

কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের সুপারিশ মেনে ইতিমধ্যেই পরিবহণ ব্যবস্থায় রাশ টানা-সহ বেশ কিছু পদক্ষেপ করতে সক্রিয় হয়েছে প্রশাসন। পাশাপাশি দূষণ মোকাবিলায় কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলার কথা বলা হয়েছে দিল্লিবাসীকে। বাইরে বেরলে গলায় স্কার্ফ এবং চোখের জ্বলুনি কমাতে সানগ্লাস পরার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এমনকি, ঘরে থাকাকালীনও প্রয়োজন বুঝে মাস্ক পরার কথাও বলা হয়েছে।

প্রতি বছরই নভেম্বরের গোড়ায় দিল্লির বাতাসে দূষণের মাত্রা বাড়তে থাকে। দীপাবলির বাজি পোড়ানো, পরিবহণ এবং অন্য দূষণের পাশাপাশি অন্যতম কারণ পড়শি পঞ্জাব এবং হরিয়ানার কৃষি জমিতে নাড়া পোড়ানো। এর ফলে ক্রমশ বিষ-বাতাসে ছেয়ে যায় দিল্লি। কিন্তু এ বার পরিস্থিতি অন্য বছরগুলির থেকেও ভয়াবহ। পরিবেশবিদদের অনেকেই ১৯৫২ সালের লন্ডনের গ্যাস চেম্বার পরিস্থিতির সঙ্গে তুলনা টানতে শুরু করেছেন। 

শুক্রবার দিল্লি সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি অফিসের জন্য নির্দেশিকা জারি করে কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ জানিয়েছে, শীঘ্রই পরিবহণ ৩০ শতাংশ কমিয়ে আনা হোক। খুব প্রয়োজন না পড়লে বাইরে বেরোতেও নিষেধ করা হয়েছে শহরের বাসিন্দাদের।

দিল্লি দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ সূত্রের খবর, প্রয়োজনে লকডাউন ঘোষণা করে যানবাহন এবং শিল্প-দূষণ নিয়ন্ত্রণেরও বিকল্প নিয়ে ভাবনাচিন্তা চলছে।

আরও পড়তে পারেন

‘স্বাধীনতা’ মন্তব্যে বিতর্কের ঝড়! পদ্মশ্রী ফিরিয়ে দেবেন কঙ্গনা রনাউত, তবে…

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন