কাশ্মীরে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদীদের’ কেন্দ্রের আর্থিক অনুদান বন্ধের আবেদন খারিজ করল শীর্ষ আদালত। সেই সঙ্গে কোর্টের নির্দেশ, হুরিয়ত নেতাদের কোনও ভাবেই ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ বলা যাবে না। কারণ সরকারি ভাবে হুরিয়ত এখনও ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ দল নয়। 

হুরিয়ত নেতাদের দেওয়া কেন্দ্রীয় সরকারের আর্থিক অনুদান বন্ধের দাবিতে গত ৮ সেপ্টেম্বর সুপ্রিম কোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় বলা হয়, হুরিয়ত নেতাদের নিরাপত্তা, বিদেশ সফরের পেছনে সরকারের প্রায় ১০০ কোটি খরচ হচ্ছে, অথচ এই টাকা দিয়ে হুরিয়ত নেতারা ভারতবিরোধী কাজকর্মে মগ্ন থাকেন।

জনৈক এম এল শর্মার করা এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে, বুধবার বিচারপতি দীপক মিশ্র আর বিচারপতি ইউ ইউ ললিতের ডিভিশন বেঞ্চ বলে, জম্মু কাশ্মীরের মতো স্পর্শকাতর রাজ্যে কোন অনুদান কাকে দেওয়া হচ্ছে সেটায় নজর রাখার দায়িত্ব বিচারব্যবস্থার নয়। নিরাপত্তার ব্যাপারে শীর্ষ আদালত বলে, সরকার কাকে নিরাপত্তা দেবে, না দেবে সেটা দেখার দায়িত্ব সরকারের।

অন্যদিকে হুরিয়ত নেতাদের ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ না বলার ব্যাপারে শীর্ষ আদালতের মন্তব্য, “এটা শুধু একটা উপলব্ধি মাত্র। সরকার কি হুরিয়ত নেতাদের ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ আখ্যা দিয়েছে? একজন মানুষের ব্যবহার অন্যদের পছন্দ  হয় না। তাই তারা তাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী বলে। তা বলে কোর্টে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ শব্দ ব্যবহার করা যাবে না”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here