শ্বশুরবাড়িতে যেই গায়ে হাত তুলুক, স্ত্রীর উপর প্রতিটি আঘাতের জন্য স্বামীই দায়ী: সুপ্রিম কোর্ট

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: স্ত্রীকে মারধরে অভিযুক্ত এক ব্যক্তির জামিনের আবেদন খারিজ দিয়ে এই মামলায় একটি তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করল দেশের শীর্ষ আদালত। সোমবার সুপ্রিম কোর্ট বলে, শ্বশুরবাড়িতে কোনো মহিলার উপর প্রতিটা আঘাতের জন্য তাঁর স্বামীই দায়ী।

সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয়, আঘাতটি অন্য কোনো আত্মীয়ের মাধ্যমে ঘটানো হলেও স্বামীকে এর জন্য দায়ী করা হবে। এই মামলায় স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত ব্যক্তির এটি তৃতীয় বিবাহ, আর অভিযোগকারী মহিলার দ্বিতীয় বিবাহ।

ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে মারধর!

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, বিয়ের এক বছর পর ২০১৮ সালে তাঁদের একটি সন্তান হয়। গত বছরের জুনে মহিলা তাঁর স্বামী এবং শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে লুধিয়ানা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। অভিযোগ, পণের টাকা পূরণ করতে না পারার জন্য ওই মহিলাকে তাঁর স্বামী, শ্বশুর এবং শাশুড়ি নির্মম ভাবে মারধর করেছেন।

অভিযুক্ত ব্যক্তির আইনজীবী কুশাগ্র মহাজন তাঁর মক্কেলের আগাম জামিনের আবেদন করলে ভারতের প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদের নেতৃত্বে একটি বেঞ্চ বলেছিল, “আপনি কেমন লোক? মহিলা অভিযোগ করেছেন যে তাঁর স্বামী তাঁকে শ্বাসরোধ করে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছিল। এই ঘটনায় তাঁর গর্ভপাত হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আপনি কেমন ধরনের মানুষ, যে নিজের স্ত্রীকে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে মারধর করেন?”

কে মেরেছে বিবেচ্য নয়

আইনজীবী বলেন, মহিলা নিজেই অভিযোগ করেছেন যে তাঁর শ্বশুর তাকে একটি ব্যাট দিয়ে পিটিয়েছিলেন, স্বামী নন। তখন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ বলেছিল, “আপনার বাবা না কি আপনি তাঁকে ব্যাট দিয়ে আঘাত করেছেন কি না তা বিবেচ্য নয়। যখন কোনো মহিলা তাঁর শ্বশুরবাড়িতে আঘাত পান, তখন প্রাথমিক দায় তাঁর স্বামীরই”।

শুনানিতে বেঞ্চ অভিযুক্তের জামিনের আবেদন খারজি করে দেয়। উল্লেখ্য, এর আগে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টও অভিযুক্তের আগাম জামিন দিতে অস্বীকার করেছিল। আগাম জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়ে হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়, গত ২০২০ সালের ১২ জুন, রাত ৯টা নাগাদ আবেদনকারী (স্বামী) এবং তাঁর বাবা ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে অভিযোগকারিণীকে নির্মম ভাবে মারধর করেন। এই মারধরের ঘটনা নির্যাতিতার শাশুড়িও অংশ নেন।

একই সঙ্গে বলা হয়, আবেদনকারী এবং তার বাবা অভিযোগকারিণীর মুখে বালিশ চাপা দিয়ে তাঁর শ্বাসরোধ করে খুনের চেষ্টাও করে। তাঁকে রাস্তায় ছুড়ে ফেলে দেওয়া হয়। এই নির্মম অত্যাচারের ঘটনায় মহিলার গর্ভপাত হয়ে যায় বলে দাবি করা হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: শুধু স্ত্রী এবং সন্তানেরা নয়, ছেলের উপার্জনের ভাগিদার বাবা-মা, তাৎপর্যপূর্ণ রায় আদালতের

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন