কাশ্মীর নিয়ে সুপ্রিম-ধাক্কা খেল কেন্দ্র

0
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: দীর্ঘদিন ধরে ইন্টারনেট বন্ধ রাখা অযৌক্তিক, কারণ তাতে সাধারণ মানুষের অধিকার খর্ব হয়। কাশ্মীর নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণে এ ভাবেই ধাক্কা খেল কেন্দ্র। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কাশ্মীরে ইন্টারনেট-নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারটি নতুন করে পর্যালোচনা করার জন্য কেন্দ্রকে নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত।

কাশ্মীরের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ কী নির্দেশ দেয়, সেই দিকে নজর ছিল প্রায় গোটা দেশেরই।

এ দিন সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ, ইন্টারনেটের অধিকার বাকস্বাধীনতারই একটা অঙ্গ। শীর্ষ আদালতের নির্দেশিকা পড়ে শোনানোর সময়ে বিচারপতি এনভি রমনা বলেন, “সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১৯-এ যে বাকস্বাধীনতার কথা বলে হয়েছে, তারই একটা অঙ্গ ইন্টারনেটের অধিকার।”

রমনা আরও বলেন, “অন্য আর কোনো উপায় না থাকলে তবেই কারও স্বাধীনতার ওপরে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যেতে পারে, তা-ও অল্প কিছু দিনের জন্য।”

“কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞা আরোপের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আমরা খুঁজব না”, এ কথা বলে বিচারপতি রমনা বলেন, “নিরাপত্তা আর মানুষের স্বাধীনতার মধ্যে যাতে ভারসাম্য বজায় থাকে সেই দিকেই নজর দেব আমরা।”

কাশ্মীরে পরিপ্রেক্ষিতে এই রায়দান হলেও, ব্যাপারটা যে গোটা দেশের বর্তমান পরিস্থিতির ক্ষেত্রেও তাৎপর্যপূর্ণ তা বলাই যায়।

উল্লেখ্য, গত ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে দেওয়া হয়। তার পর থেকেই সেখানে লাগাতার নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে। ওই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধেই একাধিক মামলা করা হয় শীর্ষ আদালতে।

আরও পড়ুন ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে ইউক্রেনের বিমান ধ্বংসের অভিযোগ ওড়াল ইরান, তদন্তে যুক্তরাষ্ট্র

কাশ্মীর নিয়ে মামলাকারীদের মধ্যে ছিলেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা গুলাম নবী আজাদও। এ ছাড়াও কাশ্মীর টাইমসের সম্পাদক অনুরাধা ভাসিনেরও একটি আবেদন রয়েছে শীর্ষ আদালত।

গত বছর ২৭ নভেম্বর এই মামলাগুলির শুনানি শেষ হয়। ওই দিন এর রায়দান স্থগিত রেখেছিল শীর্ষ আদালত।

কেন্দ্রের দাবি, উপত্যকায় এই নিষেধাজ্ঞার জন্যই বিশেষ মর্যাদা তুলে দেওয়ার পরেও কোনো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। পাশাপাশি জঙ্গি কার্যকলাপ অনেকটাই কমেছে এবং সেটা যে এই নিষেধাজ্ঞার জন্যই হয়েছে তাও সুপ্রিম কোর্টকে বুঝিয়েছে কেন্দ্র।

বিচারপতি রমনা নেতৃত্বাধীন এই বেঞ্চের আরও দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি আর সুভাষ রেড্ডি এবং বিচারপতি বিআর গবই।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.