নয়াদিল্লি: দেশের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসকারী কাশ্মীরিদের কোনো ভাবে হেনস্থা করা যাবে না। এই ব্যাপারে কেন্দ্র এবং রাজ্যগুলিকে কড়া নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

কাশ্মীরিরা যাতে কোনো ভাবে সামাজিক বয়কট বা আক্রমণের শিকার না হন, সেই দিকটা দেখার নির্দেশ কেন্দ্রের পাশাপাশি দশটি রাজ্যকে দিয়েছে শীর্ষ আদালত। এই দশটি রাজ্য হল, কাশ্মীর, উত্তরাখণ্ড, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মেঘালয়, ছত্তীসগঢ়, পশ্চিমবঙ্গ, পঞ্জাব এবং মহারাষ্ট্র।

পুলওয়ামা হামলার পর দেশের বিভিন্ন প্রান্তে হামলার শিকার হচ্ছেন কাশ্মীরিরা। এই নিয়েই সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন আইনজীবী তারিক আজিব।

কাশ্মীরিদের ওপরে হামলার পাশাপাশি মেঘালয়ের রাজ্যপাল তথাগত রায়ের একটি টুইটেও দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য আবেদন করেন তিনি। বিতর্কিত সেই টুইটে কাশ্মীরকে সামাজিক ভাবে বয়কট করার ডাক দিয়েছিলেন তথাগতবাবু।

এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতেই এ দিনের কড়া নির্দেশ দিল প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ।

উল্লখ্য, স্বঘোষিত গোরক্ষকদের তাণ্ডব থেকে মানুষকে বাঁচানোর জন্য গত বছর রাজ্যগুলিকে নোডাল অফিসার নিয়োগ করার নির্দেশ দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। সেই অফিসারদের ওপরেই নতুন দায়িত্ব দিয়েছে আদালত। কাশ্মীরিরা যাতে কোনো ভাবে হামলার শিকার না হন, সেটা দেখার দায়িত্ব এই অফিসারদের।

সেই সঙ্গে নির্দেশে আরও বলা হয়েছে, “কাশ্মীরিদের যে হেনস্থা ব হামলা করবে তাদের বিরুদ্ধে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজ্যগুলির মুখ্যসচিব, ডিজিপি এবং দিল্লির পুলিশ কমিশনারের ওপর বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে।”

এই নির্দেশের পরে আদালতের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়ে টুইট করেছেন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ।

আরও পড়ুন হেনস্থার শিকার কাশ্মীরিদের পাশে থাকার বার্তা, ২৪ ঘণ্টার হেল্পলাইন চালু সিআরপিএফের

কাশ্মীরিদের ওপরে হামলা আটকাতে সব থেকে প্রথমে এগিয়ে এসেছে সিআরপিএফই। ২৪ ঘণ্টার একটি হেল্পলাইন চালু করেছে তারা। কাশ্মীরিরা কোথাও হেনস্থার শিকার হলে, সেই নম্বরে যোগাযোগ করতে পারে বলে জানিয়েছে এই কেন্দ্রীয় বাহিনী।

পাশাপাশি কাশ্মীরিদের আক্রমণ করলে কড়া শাস্তির হুমকি দিয়েছে কেন্দ্রও। তবুও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কাশ্মীরিদের ওপরে হামলা লেগেই রয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here