dhola massacre
ঢোলায় হত পাঁচ। ছবি সৌজন্যে এনডিটিভি.কম।

নিজস্ব সংবাদদাতা, গুয়াহাটি: সন্দেহভাজন আলফা (আই) বন্দুকবাজের হাতে প্রাণ গেল পাঁচ ব্যক্তির। এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডটি ঘটে বৃহস্পতিবার রাত ৯টা নাগাদ অসমের তিনসুকিয়া জেলার খেরবাড়ি গ্রামে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা করেছেন। নিন্দা করেছেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালও। তিনি জলসম্পদ মন্ত্রী কেশব মহান্ত এবং বিদ্যুৎ দফতরের প্রতিমন্ত্রী তপন কুমার গগৈকে অবিলম্বে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে বলেছেন। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে সারা অল আসাম বেঙ্গলি ইউথ স্টুডেন্ট ফেডারেশন শুক্রবার ১২ ঘণ্টার জন্য তিনসুকিয়া বন্‌ধের ডাক দিয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেস শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন শ্যামলাল বিশ্বাস (৬০), অনন্ত বিশ্বাস (১৮), অবিনাশ বিশ্বাস (২৩), সুবল দাস (৬০) ও ধনাই নমশূদ্র (২৩)। ঘটনাটি ঘটে ঢোলা-সদিয়া সেতু থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে সদিয়া শহরের কাছে। ওই ব্যক্তিরা একটি দোকানে বসেছিলেন। নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনের ক্যাডাররা সেখানে এসে ওই ব্যক্তিদের ব্রহ্মপুত্রের ধারে নিয়ে যায় এবং লাইন করে দাঁড় করিয়ে গুলি করে বলে পুলিশ সূত্রে জানা যায়। জায়গাটি অসম-অরুণাচল সীমানার কাছাকাছি। পুলিশ এবং সেনাবাহিনী গোটা অঞ্চলটি ঘিরে রেখে দুষ্কৃতীদের খোঁজে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে। আলফা (আই) অবশ্য এখনও এই হত্যাকাণ্ডের দায় নেয়নি।

আরও পড়ুন জাতীয় নাগরিকপঞ্জি: আগে বাতিল ৫টি নথি ফের গ্রহণের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

ঘটনায় ব্যথিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। শোকাহত পরিবারদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে এক প্রেস বিবৃতিতে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, এই হত্যাকাণ্ড যারা ঘটিয়েছে তাদের কড়া হাতে মোকাবিলা করা হবে। ওই এলাকার পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য রাজ্যের ডিজিপি কুলা শইকিয়া এবং এডিজিপি মুকেশ আগরওয়ালকে ঘটনাস্থলে দ্রুত যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। রাজ্যের সমস্ত ডেপুটি কমিশনার এবং পুলিশ সুপারকে সতর্ক থাকতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

সরকারি আধিকারিকরা স্পষ্ট করে না বললেও কিছু কিছু সংবাদ মাধ্যমের খবর, যে হেতু যাঁদের হত্যা করা হয়েছে তাঁরা সকলেই বাঙালি, সে হেতু এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এনআরসির যোগ আছে বলে মনে করছেন অনেকেই।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর নিন্দা।

এক টুইট বার্তায় অসমের এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে অসমের জাতীয় নাগরিকপঞ্জির যোগ রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন। “অসম থেকে সাংঘাতিক খবর আসছে। তিনসুকিয়ায় এই নৃশংস আক্রমণের তীব্র নিন্দা করছি। এনআরসি নিয়ে ইদানীং যা ঘটছে এটা কি তার পরিণাম? শোকাহত পরিবারদের সমবেদনা জানানোর মতো ভাষা আমাদের নেই। দোষী ব্যক্তিদের দ্রুত শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।”

এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে তৃণমূল কংগ্রেস কলকাতা ও শিলিগুড়ি সহ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় শুক্রবার সমাবেশের ডাক দিয়েছে।

 

 

 

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here