ওয়েবডেস্ক: মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন এটিএস প্রধান হেমন্ত কারকারেকে নিয়ে অদ্ভুত মন্তব্য করে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন মালেগাঁও বিস্ফোরণে অভিযুক্ত তথা এ বারের লোকসভা ভোটে ভোপালের বিজেপি প্রার্থী সাধ্বী প্রজ্ঞা। তবে শেষমেশ চাপের মুখে পড়ে তিনি নিজের বক্তব্য থেকে একশো আশি ডিগ্রি সরে এলেন।

গত বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সামনে সাধ্বী দাবি করেছিলেন, “মালেগাঁও বিস্ফোরণের ঘটনায় আমাকে দোষী প্রমাণিত করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছিলেন কারকারে। পরে জেল হেফাজতে থাকার সময় আমাকে দোষ স্বীকার করানোর জন্য অকথ্য অত্যাচারের পাশাপাশি হুমকিও দিতেন উনি। তখনই তাঁকে আমি সাবধান করেছিলাম যে, এই ব্যবহারের জন্য আপনার সর্বনাশ হবে। আর তার কিছুদিনের মধ্যে জঙ্গিদের গুলিতে মারা যান হেমন্ত কারকারে। আসলে আমি যখন জেলে গিয়েছিলাম তখনই অশুভ সময় শুরু হয়েছিল ওনার। আর তার ঠিক ৪৫ দিন পর ওনার মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে তা শেষ হয়।”  

শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি বলেন, “আমার মন্তব্য যদি শত্রুদের আনন্দ দেয়, তা হলে আমি সেই মন্তব্য ফিরিয়ে নিচ্ছি। এবং একই সঙ্গে আমি ক্ষমাও চেয়ে নিচ্ছি। আমাদের মন্তব্য কোনো ভাবেই শত্রুদের উৎসাহিত করতে পারে না। যে যন্ত্রণা আমি পেয়েছি, তা আমি নিজের কাছেই রাখছি। কিন্তু সন্ত্রাসবাদীরা কারকারেকে হত্যা করেছিল, তিনি একজন শহিদ”।

প্রজ্ঞার এই ক্ষমাপ্রার্থনার ঘটনাটি ঘটে তাঁর মন্তব্য নিয়ে সৃষ্টি হওয়া চাঞ্চল্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপির সাংবাদিক বিবৃতি প্রকাশের পরই। বিজেপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে লিখিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “বিজেপি স্পষ্ট ভাবেই মনে করে স্বর্গীয় হেমন্ত কারকারে সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গে বীরত্বের সঙ্গে লড়াই করে শহিদ হয়েছেন। সাধ্বী প্রজ্ঞা এ ব্যাপারে যে বক্তব্য পেশ করেছেন, তা একান্ত ভাবে তাঁর নিজস্ব। তিনি যে শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতনের সম্মুখীন হয়েছিলেন, সেই অভিজ্ঞতা থেকেই ওই মন্তব্য করে থাকতে পারেন”।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here