নয়াদিল্লি: কালো টাকার বিরুদ্ধে লড়াইকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভারতবাসীর কাছে আবেদন জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই সঙ্গে ডিজিটাল মাধ্যমে লেনদেন বাড়ানোর জন্য নিজের রেডিও বার্তা ‘মন কী বাত’-এ দেশবাসীকে উৎসাহ দিলেন তিনি। 

মোদীর বক্তব্য, ১২৫ কোটি ভারতবাসী যদি চান তা হলে শীঘ্রই এক ‘নতুন ভারত’ দেখা যাবে। তাঁর কথায়, “আমার প্রিয় দেশবাসী, দুর্নীতি এবং কালো টাকার বিরুদ্ধে যুদ্ধকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার সময় এসেছে। নগদ এবং নোটের ব্যবহার কমানোর জন্য আমাদের আরও কিছুটা পথ এগোতে হবে।”

কী ভাবে নগদহীন সমাজের পথে এগিয়ে যাওয়া যাবে, সে উপায়ও বের করে দিয়েছেন মোদী। স্কুলের মাইনে, ওষুধপত্র কেনা, রেল এবং বিমান টিকিটের ক্ষেত্রে নগদহীন ব্যবস্থায় লেনদেন করার কথা বলেন তিনি। “আপনারা ভাবলে অবাক হবেন, যে এ রকম ভাবেই দুর্নীতিবিরোধী লড়াইয়ে ভারত এক জন সাহসী সেনা হয়ে উঠবে।” গত কয়েক মাসে নগদহীন অর্থনীতির প্রতি যে ভাবে উৎসাহ বেড়েছে তার জন্য দেশবাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন প্রধানমন্ত্রী।

মোদীর মতে, “নগদহীন অর্থনীতির প্রতি উৎসাহ ক্রমশ বাড়ছে। গরিব মানুষও চেষ্টা করছেন নগদহীন পদ্ধতি জানার ব্যাপারে।”

নগদহীন অর্থনীতির ব্যাপারে বলার পর, অবসাদে ভুগতে থাকা মানুষদের প্রতিও বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। মোদীর মতে অবসাদও সারিয়ে তোলা যায়, তার জন্য রোগীকে আগে রোগের ব্যাপারে বলতে হবে। তিনি বলেন, “অবসাদে আক্রান্ত মানুষরা সামনে আসতে ভয় পান, লজ্জা পান। আমাদের উচিত তাদের জন্য একটা স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি করা যাতে তাঁরা নিজেদের কথা খুলে বলতে পারেন।”

স্বাধীনতা সংগ্রামে মহাত্মা গান্ধীর অবদানের কথাও মনে করান মোদী। মহাত্মা গান্ধীর অংশগ্রহণ ছিল ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের টার্নিং পয়েন্ট, সে কথা মনে করিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি স্বাধীনতা দিবসে পড়শি বাংলাদেশকেও অভিনন্দন জানান তিনি। বাংলাদেশের প্রতি মোদীর বার্তা, শান্তি, নিরাপত্তা এবং উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশের সব সময় পাশে থাকবে ভারত।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন