চেন্নাই: তামিলনাড়ুর কুড্ডালোরের একটি বেসরকারি স্কুলের ২৩ বছরের শিক্ষিকাকে খুন হতে হল বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায়। ঘটনার গতিপ্রকৃতি এবং আততায়ীর গতিবিধির দিকে তাকিয়েই প্রাথমিক ভাবে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে পুলিশ।

চেন্নাই থেকে প্রায় ২০০ কিমি দূরে গায়ত্রী ম্যাট্রিকুলেশন স্কুলে অঙ্ক পড়াতেন এস রামাইয়া। ক্লাসরুমে যখন তিনি একা ছিলেন, সে সময়ই রাজশেখর নামে এক পরিচিতর হাতে খুন হতে হয় তাঁকে।

পুলিশ খোঁজ নিয়ে জেনেছে, রামাইয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিল রাজশেখর। তাঁরা পরস্পর পরস্পরকে চিনতেন কলেজে পড়ার সময় থেকেই। ছ’মাস আগে রাজশেখর তরুণীর বাবা-মায়ের সঙ্গে দেখা করে তাঁদের মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কিন্তু পরিবার অরাজি হয়। এর পরই ওই শিক্ষিকার পিছু নেয় রাজশেখর।

পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, সুযোগের ্অপেক্ষাতেই ছিলেন রাজশেখর। রামাইয়ার বাড়ি স্কুলের কাছে হওয়ায় তিনি প্রায়শই অন্যান্যদের তুলনায় আগে স্কুলে চলে যেতেন। সেই সুযোগেই তাঁকে একা পেয়ে হামলা চালায় রাজশেখর।

অন্য দিকে রাজশেখরের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশ। তাঁর বোন পুলিশকে জানিয়েছে, রাজশেখর বোনকে বলে গিয়েছেন, তিনি আত্মহত্যা করবেন!

[ পড়ুন: ছেলে খেতে দেয় না? গঙ্গায় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা বৃদ্ধ দম্পতির ]

শিক্ষিকার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here