ঋণ মকুবের দাবিতে কৃষক-বিক্ষোভের মধ্যেই বিধায়কদের বেতন আড়াই গুন বাড়ল তামিলনাড়ুতে

0
262

চেন্নাই: এক দিকে যখন কৃষিঋণ মকুবের জন্য দিল্লিতে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন রাজ্যের চাষিরা, ঠিক তখনই নিজেদের বেতন বাড়িয়ে নিলেন তামিলনাড়ুর বিধায়করা। বুধবার বিধায়কদের বেতন বাড়ানোতে সিলমোহর দিয়েছে তামিলনাড়ু বিধানসভা।

এখনও পর্যন্ত মাসে ৫৫,০০০ টাকা বেতন পেতেন বিধায়করা। সেই বেতন বাড়িয়ে এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার করা হয়েছে। অর্থাৎ বেতন বাড়ানো হয়েছে প্রায় আড়াই গুন। বেতন ভাতা বাড়ানোর কথা ঘোষণা করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পালানিস্বামী। এ ছাড়াও বিধায়কদের বিধানসভা কেন্দ্র প্রতি মাসিক ভাতা মাসে দু’ কোটি থেকে ছ’ কোটি টাকা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, এমন একটা সময় বিধায়কদের বেতন বাড়ানো হয়েছে যখন দিল্লিতে নিজেদের করুণ অবস্থা দেখানোর জন্য রোজরোজ নতুন পন্থা নিচ্ছেন কৃষকরা। কৃষিঋণ মকুব করার পাশাপাশি তাঁদের দাবি খরাত্রাণে চল্লিশ হাজার কোটি টাকা মঞ্জুর করা হোক। কেন্দ্রের কাছে তাঁদের দাবি ‘কাবেরী ম্যানেজমেন্ট বোর্ড’ তৈরি করার।

কখনও মাথা কামিয়ে এবং অর্ধেক গোঁফ কামিয়ে প্রতিবাদ দেখাচ্ছেন তাঁরা, তো কখনও মুখে ইঁদুর এবং সাপ রাখতেও পিছপা হচ্ছেন না। কৃষক আত্মহত্যা বোঝানোর জন্য সে রকম অভিনয়ও করছেন তাঁরা।

ভাতা বাড়ানোর দাবি সাংসদদেরও

পালানিস্বামী এই বেতন বৃদ্ধি ঘোষণা করার আগেই অবশ্য সংসদেও বেতন বৃদ্ধির আবদার শুরু হয়ে যায়। বেতন বৃদ্ধির দাবি জানান সমাজবাদী পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ নরেশ আগরওয়াল।

রাজ্যসভায় হইহট্টগোলের মধ্যেই তিনি বলেন, “আমাদের সচিবদের থেকেও আমাদের বেতন কম।” একই মত পোষণ করেন কংগ্রেস সাংসদ আনন্দ শর্মা।

এমনিতে বিভিন্ন ভাতা যদি হিসেবের বাইরে রাখা হয়, তা হলে বেতনের হিসেবে এক একজন সাংসদ প্রতি মাসে বেতন পান এক লক্ষ চল্লিশ হাজার টাকা করে, বছরে সেটা দাঁড়ায় ১৬ লক্ষ ৮০ হাজার। সেই সঙ্গে ভাতা ধরা হলে এক সাংসদের আয় বেড়ে দাঁড়ায় মাসে এক লক্ষ ৫১ হাজার ৮০০ টাকা এবং বছরে ১৮ লক্ষ ২২ হাজার টাকা।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here