জলকষ্টের দিন কি শেষ হল লাতুরের? ছ’ মাস পর আবার সেখানে কলে জল আসতে চলেছে। পুরসভা কথা দিয়েছে, দু’ দিনের মধ্যেই কলে জল মিলবে। তবে আপাতত পনেরো দিনে এক বার কলের জল পেয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে শহরবাসীদের।

আবহাওয়া দফতরের হিসাব, শনিবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে রবিবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টি হয়েছে ৬৮.২ মিলিমিটার। ১ জুন থেকে বৃষ্টির পরিমাণ ৪৪৮.৬ মিলিমিটার, স্বাভাবিকের চেয়ে ১৩২.৬% বেশি। ফলে মঞ্জিরা নদীর উপর নাগজারি ও সাই ব্যারাজে ৩৫ লক্ষ কিউবিক মিটার জল বেড়েছে। তাই লাতুর শহরের জলের চাহিদা মেটাতে ওই দুই ব্যারাজ থেকে ২০০ লক্ষ লিটার জল তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে লাতুরের মিউনিসিপ্যাল কমিশনার সুধাকর তেলাং জানিয়েছেন।

লাতুর শহরে জল সরবরাহ নিয়ে জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় নগর প্রশাসন রবিবার এক বৈঠকে বসে। ওই বৈঠকেই ঠিক হয়, শহরে আবার কলের জল চালু করা হবে। ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে কলে শেষ বার জল এসেছিল। তার পর থেকে কল শুকনো। জল সরবরাহ করা হয় ট্যাংকারে। শহরে জলের মোট চাহিদার মাত্র ১০ শতাংশ সরবরাহ করা সম্ভব হয়েছে এই গ্রীষ্মে। মিরাজ থেকে জল নিয়ে যাওয়া হয়েছে রেলপথে। গত শুক্রবার পর্যন্ত ১০১ ট্রিপ দিয়েছে জলদূত এক্সপ্রেস। জলদূত প্রতি ট্রিপে ৫০টি করে ওয়াগন নিয়ে গিয়ে জল পৌঁছে দিয়েছে লাতুরে। তেলাং জানিয়েছেন, জলদূতের আর প্রয়োজন নেই। দু’ এক দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নিয়ে ওই পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here