assam teacher

নগাঁও (অসম): অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকের সাহস কত বড়ো! মঞ্চে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বসে রয়েছেন আর তিনি খারাপ রাস্তার কথা বলে চলেছেন! এই ‘অপরাধে’ তাঁর বক্তৃতা মাঝপথেই থামিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে অসমের নগাঁওয়ে।

স্বচ্ছ ভারত অভিযান নিয়ে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে উঠেছিলেন অবসরপ্রাপ্ত এক শিক্ষক। অসমের রাস্তার অবস্থা নিয়ে বর্তমান সরকারকে তুলোধোনা করতে শুরু করেন তিনি। কিন্তু ওই মঞ্চেই যে বসেছিলেন কেন্দ্রীয় রেলপ্রতিমন্ত্রী তথা অসমের এক সাংসদ রাজেন গোহাঁই। শিক্ষকের এই বক্তব্য মাঝপথেই থামিয়ে দেন তিনি। ‘সমস্যার কথা প্রকাশ্যে জানানোর জন্য’ ওই শিক্ষককে টিটকিরি করতেও ছাড়েননি গোহাঁই।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ওই শিক্ষক বলেন, “আপনি আমার সঙ্গে আসুন। রাস্তার বেহাল দশা দেখে যান।” এই জবাবে মন্ত্রী বলেন, “আপনি প্রকাশ্যে কেন এই কথা বলছেন? আপনার উদ্দেশ্যটা কী?” মন্ত্রী আরও বলেন, “আপনার ব্যক্তিগত কোনো সমস্যা থাকলে আপনি আমার সঙ্গে ব্যক্তিগত ভাবে কথা বলুন, কিন্তু এ রকম ভাবে প্রকাশ্য সভায় বলবেন না।”

মন্ত্রীর এ হেন ব্যবহারের পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছে শিক্ষক এবং পড়ুয়াদের একাংশ। নগাঁও শহরে তাঁর বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ দেখানো হয়। পড়ানো হয় মন্ত্রীর কুশপুতুলও। শিক্ষকের কাছে মন্ত্রীর ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। তবে এ সবের মধ্যেও মন্ত্রীকে নিজের অবস্থান থেকে সরানো যায়নি। তিনি ক্ষমা চাইবেন কি না, এটা প্রশ্ন করা হলে, মন্ত্রী বলেন, “ক্ষমা চাওয়ার কী আছে।”

এখন প্রশ্ন হল, রাজ্যের সরকার যদি কংগ্রেসের হত, তা হলে কি মন্ত্রী মাঝপথে ওই শিক্ষকের বক্তব্য থামাতেন?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here