trump and modi
প্রতীকী ছবি। সৌজন্যে স্ক্রল ডট ইন।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ফোনে কথা হল দুই রাষ্ট্রপ্রধানের – ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump)। চিন-ভারত সীমান্ত সমস্যা-সহ (Indo-China border dispute) নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে এল আলাপচারিতায়। মঙ্গলবার সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে এই খবর দেওয়া হয়েছে।

পূর্ব লাদাখে দু’ দেশের সৈন্য সমাবেশ নিয়ে দুই নেতার মধ্যে কী আলোচনা হয়েছে, সে সম্পর্কে সরকারি বিবৃতিতে অবশ্য নির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট দাবি করেছিলেন, তিনি ভারত-চিনের মধ্যে মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছেন। কিন্তু ভারত সরকারের শীর্ষ কর্তারা এই দাবি নস্যাৎ করে দেন। তাঁরা জোর দিয়ে বলেন, সাম্প্রতিক অতীতে দুই নেতার মধ্যে কোনো আলোচনাই হয়নি। চিনও ট্রাম্পের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়। বলে, আলাপআলোচনা ও পরামর্শ আদানপ্রদানের মধ্য দিয়ে সমস্যা যথাযথ ভাবে মিটিয়ে নিতে দুই দেশ যথেষ্ট পারদর্শী।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (USA) সোমবার বলে, ভারতের (India) বিরুদ্ধে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (Line of Actual Control) বরাবর চিনা আগ্রাসনে তারা খুব উদ্বিগ্ন। মার্কিন প্রতিনিধিসভার (US House of Representatives) বিদেশ বিষয়ক কমিটির (Foreign Affairs Committee) প্রধান এলিয়ট এঞ্জেল (Elliot Engel) বলেন, “নিয়ম মেনে চলার জন্য এবং কূটনীতি এবং প্রচলিত পদ্ধতির মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত প্রশ্ন মিটিয়ে নেওয়ার জন্য আমরা চিনকে কড়া ভাবে অনুরোধ করছি।”

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিতব্য জি ৭ শীর্ষ সম্মেলনে (G7 Summit) যোগ দেওয়ার জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ভারত-সহ আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ দেশকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য গ্রুপের সদস্য-পরিধি বাড়ানোর যে ইচ্ছা তাঁর রয়েছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তা ব্যক্ত করেন।”

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যে নাগরিক অশান্তি চলছে সে সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী মোদী এবং অশান্ত পরিস্থিতি দ্রুত মিটে যাওয়ার ব্যাপারে ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

দু’ দেশের কোভিড ১৯ (Covid 19) পরিস্থিতি এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (World Health Organisation, হু) সংস্কারের বিষয়টি নিয়েও কথা হয় বলে সরকারি বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই হু-র সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তাদের অভিযোগ, গোড়ার দিকে করোনাভাইরাস (coronavirus) সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া আটকাতে হু ব্যর্থ হয়েছে। বিশ্বব্যাপী অতিমারি মোকাবিলা করার ব্যাপারে ব্যর্থতার অভিযোগ তুলে মাস খানেক আগে হু-কে অর্থ সাহায্য বন্ধ করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তাঁর অভিযোগ ছিল, জেনেভা-ভিত্তিক এই সংস্থা আদতে চিনের হাতের পুতুল। তারা যদি কোভিড ১৯-এর বিরুদ্ধে কার্যকর কিছু না করতে পারে তা হলে অর্থ সাহায্য বন্ধই থাকবে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন