sensex modi

ওয়েবডেস্ক: খাদের কিনারায় এসে পৌঁছোলো লোকসভায় বিজেপির একক  সংখ্যাগরিষ্ঠতা। এ মুহূর্তে খাতায়-কলমে সংসদের নিম্ন কক্ষে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপির সাংসদ সংখ্যা ২৭৩ হলেও বাস্তবে তা দাঁড়িয়েছে ২৭০-এ।

বৃহস্পতিবার চারটি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে বিজেপি জিতেছে মহারাষ্ট্রের পালঘর লোকসভা আসনটি। ওই আসনটি ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে এনডিএ-গত ভাবে জয়ী হয়েছিল শিবসেনা। তবুও কর্নাটকের দুই সাংসদ সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা ভোটে পদত্যাগ করায়, দু’টি সাংসদপদ বাস্তবিক ভাবে তাদের হাতে নেই। অন্য দিকে জম্মু-কাশ্মীরের এক জন সাংসদও একই ভাবে পরিসংখ্যানে থেকেও সশরীরে অমিল। সেই হিসাবে এখন বিজেপির সাংসদ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭০-এ।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এই অবস্থার উন্নতি না করতে পারলে ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির পক্ষে একক ভাবে সরকার গঠন প্রায় অসম্ভব। সে ক্ষেত্রেও তাদের জোটের উপরই নির্ভর করতে হবে। কারণ, গত দুই বছরে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে অনুষ্ঠিত লোকসভা উপনির্বাচনে মাত্র দু’টি আসন দখল করতে পেরেছে বিজেপি। উলটো দিকে সাতটি আসন ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছে গেরুয়া শিবির।

কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হয়ে বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সময় সাংসদপদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন বি এস ইয়েদিয়ুরাপ্পা। একই ভাবে সে রাজ্যে সাংসদপদ ছেড়েছেন বি শ্রীরামুলু। ওই আসন দু’টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়নি। তবে উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে অংশ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ এবং উপমুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্যের ছেড়ে যাওয়া গোরখপুর এবং ফুলপুর লোকসভা কেন্দ্র দু’টির উপনির্বাচনে পরাজয় তিক্ত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন করেছে বিজেপি-কে।

এরই মাঝে গোদের উপর বিষ ফোঁড়া এনডিএ থেকে তেলুগু দেশম পার্টির প্রস্থান এবং শিবসেনার পৃথক ভাবে লড়াই করার সিদ্ধান্ত। সব মিলিয়ে বিজেপি হোক বা এনডিএ-গত ভাবে হোক, খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে মোদী সরকারের ভবিষ্যৎ!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here