ripon

ওয়েবডেস্ক: রাজ্যসভায় কংগ্রেসের সাংসদ রিপন বোরা জাতীয় সংগীত সংশোধনের আবেদন করলেন। তাঁর বক্তব্য, ভারতের জাতীয় সংগীত ‘জনগণমন’-তে একটি অর্থহীন শব্দ রয়েছে, সেটি ‘সিন্ধু’, যার কোনো অস্তিত্ব ভারতে নেই। কারণ যে সময় জাতীয় সংগীতটি লেখা হয়েছিল তখন সিন্ধ বা পাকিস্তান ভারতের অঙ্গ ছিল। এখন যা পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন। অন্য দিকে উত্তর-পূর্ব ভারতের উল্লেখ নেই ররীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা ওই জাতীয় সংগীতে।

সংবিধানের যুক্তি পেশ করে রিপনের দাবি, ১৯৫০ সালের ২৪ জানুয়ারি ভারতের রাষ্ট্রপতি ড. রাজেন্দ্র প্রসাদ বলেছিলেন, ”জনগণমন’-র সুর ও শব্দকে জাতীয় সংগীত হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হল। তবে যথোপযুক্ত কারণ থাকলে তার পরিবর্তনের বিষয়ে সরকার যুক্তিগ্রাহ্য পদক্ষেপ নিতে পারে।”

উল্লেখ্য, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘জনগণমন’ রচনা করেছিলেন ১৯১১ সালে। তখন বালুচিস্তান থেকে সিলেট পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল ভারতবর্ষ। পরে ১৯৪৭ সালে যখন ভারত স্বাধীন হয় তখন সিন্ধ, বালুচ, খাইবার-পাখতুনখাওয়া এবং পঞ্জাবের একটি অংশ পশ্চিম পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়। অন্য দিকে সিলেট, ঢাকা-সহ বাংলার একটি অংশ অন্তর্ভুক্ত হয় পূর্ব পাকিস্তানে। যা পরে ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশ নামে আত্মপ্রকাশ করে।

রিপন সংবাদ মাধ্যমকে জানান, “ভারতের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ উত্তর-পূর্ব। এই বিষয়টি দুর্ভাগ্যজনক যে সিন্ধ ভারতের তো নয়ই, উলটো দিকে ভারতের প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের অংশ।”

তবে রিপনের এই দাবি যে নিতান্তই ব্যক্তিগত সে কথা প্রথমেই জানিয়ে দেন তিনি। রাজ্যসভায় সদস্যের ব্যক্তিগত মতপ্রকাশের ভিত্তিতেই তিনি ওই দাবির উত্থাপন করেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন